হত্যা মামলার আসামীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে, পালিয়ে বেড়াচ্ছে বাদী

আমান উল্লাহ আমান, টেকনাফ:
টেকনাফে হত্যা মামলার আসামীরা নিঃসংকোচ ও বীরদর্পে এলাকায় বিচরণ করে মামলার বাদীকে প্রাণনাশের হুমকী এবং ধমকীর অভিযোগ উঠেছে। অন্যদিকে তাদের হুমকী-ধমকীতে প্রাণ ভয়ে এবং আতংকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে মামলার বাদী। হ্নীলা ইউনিয়নের পূর্ব লেদায় ঘটছে এ ঘটনা।

মামলার বাদী মোঃ আলম জানান, আমার ভাই ছিদ্দিককে যারা হত্যা করেছে তাদের বিরুদ্ধে ২৪ অক্টোবর টেকনাফ মডেল থানায় মামলা করেছি। কিন্তু ওই মামলার আসামীরা নিঃসংকোচ ও বীরদর্পে এলাকায় বিচরণ করছে। প্রতিনিয়ত মামলা তুলে নিতে আমাকে হুমকী দিয়ে যাচ্ছে। আসামীরা প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী হওয়ায় প্রতিনিয়ত নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এ অবস্থায় ওই আসামী সন্ত্রাসীদের ভয়ে নিহত ছিদ্দিকের বিধবা স্ত্রী, বৃদ্ধ মাসহ পরিবারের সবাই নির্ঘুম রাত যাপন করছি।

এছাড়া আসামীরা ইয়াবা দিয়ে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানী করবে বলে এলাকায় হাঁকাবকাসহ বিভিন্ন গালমন্দ করে বেড়াচ্ছে।

এদিকে মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে, গত ১৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার বিকালে অস্ত্রে স্বস্ত্রে সজ্জিত পুর্ব লেদার মৃত কালা চানের পুত্র আবু ছিদ্দিককে রিফুজি বাজার হইতে বাড়ী আসার পথে লেদা মৌলভীপাড়াস্থ ধলাইয়ার বাড়ীর সামনে হতে জরুরী কাজ আছে বলে নিয়া যায়। এসময় পূর্ব থেকে উঁৎপেতে থাকা ধলা মিয়া, কালু মিয়া, মোঃ হানিফ, রহমত উল্লাহ, নুর কবির, আনোয়ার হোছাইন, আবদুল মালেক ও সোনা মিয়া অতর্কিতভাবে তাকে ঘিরে লোহার রড দিয়ে আবু ছিদ্দিকের পায়ে আঘাত করে উঠানে ফেলে দেয় এবং ছুরি দিয়া হত্যা করার উদ্দেশ্যে আবু ছিদ্দিকে আঘাত করে। এসময় সে মরণপন চিৎকার দিয়ে মাটিতে পড়ে যায় ও তাহার পেটের নাড়িভুড়ি বাহির হয়ে যায়। চিৎকার শুনিয়া ভাই মোহাম্মদ আলম ও স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা ঘটনাস্থল হতে বীরদর্পে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা প্রায় মৃত আবু ছিদ্দিককে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে টেকনাফ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সরকারি হাসপাতালে রেফার করে। কক্সবাজার সদর হাসপাতালের চিকিৎসক জখমীর অবস্থা আশংকাজনক দেখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। সেখানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২১ অক্টোবর ভোরে আবু ছিদ্দিকের মৃত্যু হয়।

পরে নিহতের ভাই মোঃ আলম বাদী হয়ে গত ২৪ অক্টোবর ৮ জনকে আসামী করে খুন করার অপরাধে টেকনাফ মডেল থানায় (৩৫ নং) মামলা দায়ের করেন।

এরপর থেকে আসামীরা মামলার বাদী মোঃ আলমকে মামলা তুলে নিতে চাপ দিতে থাকে। নয়তো তাকেও প্রাণে মেরে ফেলবে বলে প্রতিনিয়ত হুমকী ও ধমকী দিয়ে বীরদর্পে এলাকায় বিচরণ করছে বলে অভিযোগ করেছে বাদী মোঃ আলম।

তাদের হুমকী ধমকী থেকে রেহাই পেতে শিগগিরই আসামীদের আটক করতে কক্সবাজার পুলিশ সুপারের সূদৃষ্টি ও সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন মামলার বাদী।

সর্বশেষ সংবাদ

সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও জবর-দখলমুক্ত নিরাপদ পেকুয়া গড়তে চান আবুল কাশেম

ভাসানচরে পুনর্বাসনকে স্বাগত জানালো ইউএনএইচসিআর

নিরাপদ ও পরিচ্ছন্ন শহর গড়তে বই মার্কাকে বিজয়ী করুন: রশিদ মিয়া

শেখ হাসিনার মনোনিত প্রার্থী জুয়েলকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করুন : মেয়র মুজিবুর রহমান

বঙ্গবন্ধু প্রেমিকেরা কোনদিন নৌকার সাথে বেঈমানী করতে পারেনা

কক্সবাজার শহরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় সংবাদকর্মীর উপর হামলা

উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক কোরক বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক নুরুল আখের

চকরিয়া-পেকুয়াকে নিরক্ষতার অভিশাপমুক্ত করতে হবে : জাফর আলম এমপি

উপজেলা পর্যায়ে আবারও শ্রেষ্ঠ শিক্ষক অধ্যাপক পদ্মলোচন বড়ুয়া

কক্সবাজার মার্কেট মালিক ফোরাম গঠিত

লাকড়ি চুরির আপবাদে দুই শিশুকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

কক্সবাজারের ৬ টি উপজেলায় রোববার সাধারণ ছুটি ঘোষণা

নবীন আইনজীবীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে ন্যূনতম ৫ বছর ভাতা দেয়া উচিৎ : ব্যারিস্টার খোকন

বিএনপি নেতা ইকবাল বদরীর মৃত‌্যুতে সালাহউদ্দিন আহমদ ও এড. হাসিনা আহমদের শোক

‘জনতার মাঝেই সেলিম আকবর’

চকরিয়ার নুরুল কবির কন্ট্রাক্টরের ইন্তেকাল, জানাযা সম্পন্ন

‘দেশের একডজন নদী থেকে ইলিশের আবাসস্থল হারিয়ে গেছে’

ইকবাল বদরীর মৃত্যুতে শাহজাহান চৌধুরীর শোক

ইকবাল বদরী’র মৃত্যুতে বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুলের শোক

ভাইস-চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুর রহমানের দিনভর প্রচারণা