হত্যা মামলার আসামীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে, পালিয়ে বেড়াচ্ছে বাদী

আমান উল্লাহ আমান, টেকনাফ:
টেকনাফে হত্যা মামলার আসামীরা নিঃসংকোচ ও বীরদর্পে এলাকায় বিচরণ করে মামলার বাদীকে প্রাণনাশের হুমকী এবং ধমকীর অভিযোগ উঠেছে। অন্যদিকে তাদের হুমকী-ধমকীতে প্রাণ ভয়ে এবং আতংকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে মামলার বাদী। হ্নীলা ইউনিয়নের পূর্ব লেদায় ঘটছে এ ঘটনা।

মামলার বাদী মোঃ আলম জানান, আমার ভাই ছিদ্দিককে যারা হত্যা করেছে তাদের বিরুদ্ধে ২৪ অক্টোবর টেকনাফ মডেল থানায় মামলা করেছি। কিন্তু ওই মামলার আসামীরা নিঃসংকোচ ও বীরদর্পে এলাকায় বিচরণ করছে। প্রতিনিয়ত মামলা তুলে নিতে আমাকে হুমকী দিয়ে যাচ্ছে। আসামীরা প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী হওয়ায় প্রতিনিয়ত নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এ অবস্থায় ওই আসামী সন্ত্রাসীদের ভয়ে নিহত ছিদ্দিকের বিধবা স্ত্রী, বৃদ্ধ মাসহ পরিবারের সবাই নির্ঘুম রাত যাপন করছি।

এছাড়া আসামীরা ইয়াবা দিয়ে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানী করবে বলে এলাকায় হাঁকাবকাসহ বিভিন্ন গালমন্দ করে বেড়াচ্ছে।

এদিকে মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে, গত ১৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার বিকালে অস্ত্রে স্বস্ত্রে সজ্জিত পুর্ব লেদার মৃত কালা চানের পুত্র আবু ছিদ্দিককে রিফুজি বাজার হইতে বাড়ী আসার পথে লেদা মৌলভীপাড়াস্থ ধলাইয়ার বাড়ীর সামনে হতে জরুরী কাজ আছে বলে নিয়া যায়। এসময় পূর্ব থেকে উঁৎপেতে থাকা ধলা মিয়া, কালু মিয়া, মোঃ হানিফ, রহমত উল্লাহ, নুর কবির, আনোয়ার হোছাইন, আবদুল মালেক ও সোনা মিয়া অতর্কিতভাবে তাকে ঘিরে লোহার রড দিয়ে আবু ছিদ্দিকের পায়ে আঘাত করে উঠানে ফেলে দেয় এবং ছুরি দিয়া হত্যা করার উদ্দেশ্যে আবু ছিদ্দিকে আঘাত করে। এসময় সে মরণপন চিৎকার দিয়ে মাটিতে পড়ে যায় ও তাহার পেটের নাড়িভুড়ি বাহির হয়ে যায়। চিৎকার শুনিয়া ভাই মোহাম্মদ আলম ও স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা ঘটনাস্থল হতে বীরদর্পে চলে যায়। পরে স্থানীয়রা প্রায় মৃত আবু ছিদ্দিককে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে টেকনাফ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সরকারি হাসপাতালে রেফার করে। কক্সবাজার সদর হাসপাতালের চিকিৎসক জখমীর অবস্থা আশংকাজনক দেখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। সেখানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২১ অক্টোবর ভোরে আবু ছিদ্দিকের মৃত্যু হয়।

পরে নিহতের ভাই মোঃ আলম বাদী হয়ে গত ২৪ অক্টোবর ৮ জনকে আসামী করে খুন করার অপরাধে টেকনাফ মডেল থানায় (৩৫ নং) মামলা দায়ের করেন।

এরপর থেকে আসামীরা মামলার বাদী মোঃ আলমকে মামলা তুলে নিতে চাপ দিতে থাকে। নয়তো তাকেও প্রাণে মেরে ফেলবে বলে প্রতিনিয়ত হুমকী ও ধমকী দিয়ে বীরদর্পে এলাকায় বিচরণ করছে বলে অভিযোগ করেছে বাদী মোঃ আলম।

তাদের হুমকী ধমকী থেকে রেহাই পেতে শিগগিরই আসামীদের আটক করতে কক্সবাজার পুলিশ সুপারের সূদৃষ্টি ও সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন মামলার বাদী।

সর্বশেষ সংবাদ

সাতকানিয়া লোহাগাড়া সমিতির ইফতার মাহফিল ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ

আন্তর্জাতিক ব্যানার ডিজাইন প্রতিযোগীতায় প্রথম হল বগুড়ার ছেলে

পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে প্রকাশিত সংবাদ ‘কাল্পনিক’ দাবি

৫টি অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে দিল কউক

সেবা গ্রহীতাদের নিয়ে কউক’র গণশুনানী

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর ভেন্টিলেটর দিয়ে বাইরে ফেলে দিলো পুলিশ

শেরে বাংলা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড পাচ্ছেন প্রফেসর এ.কে.এম ফজলুল করিম চৌধুরী

আটকে গেল বালিশ ফ্রিজ কেটলি তোলার সব বিল

পেকুয়ায় শিশু গৃহকর্মীর আত্মহত্যার চেষ্টা, আটক ১

তাজিকিস্তানে কারাগারে সংঘর্ষ, নিহত ৩২

খালেদা জিয়ার অবস্থা ‘বিপজ্জনক পর্যায়ে’: রিজভী

রূপপুর প্রকল্পে দুর্নীতি: তদন্ত প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিলের নির্দেশ

সবক্ষেত্রে বাবার নামের সঙ্গে মায়ের নাম সংযুক্ত করতে হাইকোর্টের রুল

বেনাপোলে ৩৫০ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিল উদ্ধার

প্রেম’স কালেকশনে ৩০ ফুট লম্বা পাঞ্জাবী!

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদে বরণ ও বিদায় অনুষ্ঠান

সমৃদ্ধ দেশ ও জাতি গঠনে নৈতিকতা সম্পন্ন মেধাবী জনগোষ্ঠী দরকার

সংরক্ষিত নারী আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেলেন রুমিন ফারহানা

লামার হায়দারনাশী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে অনিয়ম

আন্দোলন প্রত্যাহার করলেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা ঢাবি প্রতিনিধি