গোমাতলীর বেড়িবাঁধ নির্মাণে ঠিকাদারের গাফেলতি

সেলিম উদ্দীন, ঈদগাঁও,কক্সবাজার : কক্সবাজার সদর উপজেলার পোকখালী ইউনিয়নের গোমাতলী বেড়িবাঁধ নির্মাণের প্রকল্প অদৃশ্য কারনে আটকে থাকায় নিয়মিত জোয়ার ভাটার কারনে স্থায়ী জলাবদ্ধতার আশংকা করছেন গোমাতলী সমবায় কৃষিও মোহাজের উপনিবেশ সমিতির সহ-সভাপতি সাইফুদ্দীন। আগামি শুষ্ক মৌসুতে অন্তত ২ হাজার একর জমিতে লবণ মাঠ হবে না বলে জানিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া চলতি মৎস্য মৌসুমে অন্তত ১২শ একর জমিতে চিংড়ি চাষ হয়নি বলে দাবী করেছেন স্থানীয়রা।

লাল ফিতায় বন্দী গোমাতলী পাউবো বেড়ীবাঁধ নির্মাণ প্রকল্প। তাই সময়মত সকল জটিলতা অবসান করে যথা সময়ে কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক প্রস্তাবিত প্রকল্পের প্রয়োজনীয় অর্থ ছাড় দিয়ে কাজ শুরু না হলে গোমাতলী মানুষের বড় ধরণের আর্থিক ক্ষতি হতে পারে বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান রফিক আহমদ।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, চলতি বছর গোমাতলীতে বেড়ীবাঁধ নির্মাণের জন্য ১ কোটি ৬০লাখ টাকার একটি প্রকল্প সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠায় পানি উন্নয়ন বোর্ড। প্রস্তাবটি পাশ হওয়ার পরও দীর্ঘদিন ধরে ফাইলবন্দী হয়ে আছে। প্রস্তাবটি গোমাতলীকে জলাবদ্ধতামুক্ত করতে গুরুত্বপুর্ণ প্রকল্প হলেও এ জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ ছাড় না হওয়ায় হতাশায় ভুগছেন গোমাতলীর ২০ হাজার বাসিন্দা। সম্প্রতি জোয়ারের পানিতে সি-বল্ক ঘোনার ৬নং স্লুইচ গেইট পয়েন্টের বেড়িবাঁধের ভাঙ্গা অংশ দিয়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে অসংখ্য বসতবাড়ি,চিংড়ি ঘের প্লাবিত হয়। জোয়ারের সময় পানি প্রবেশ করলে তা ভাটার সময় বের না হওয়ায় সমগ্র এলাকা জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।

পোকখালী ইউপি চেয়ারম্যান রফিক আহমদ জানান, গোমাতলীকে জলাবদ্ধতামুক্ত করা স্থানীয় লোকজনের অন্যতম দাবী হলেও নানা জটিলতার কারণে প্রতিবারই নির্মান কাজে ব্যহত হচ্ছে। সময়মত কাজ না করলে তা কোন কাজে আসবে না। এখন চলছে বেড়ীবাঁধ নির্মাণের মৌসুম। এই সময়ে কাজ শুরু না করলে আর করা যাবে না। ইতোমধ্যে বেড়িবাধেঁর কিছু অংশ সংস্কার কাজ চলছে। এলাকায় যে জমিগুলো রয়েছে ওই জমিতে যদি জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয় এতে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে লোকজন। আমরা চাই কাজ করলে সঠিক সময়ে করা হউক।

স্থানীয়দের অভিযোগ, কোন কাজ করলেও অসময়ে করা হয়। সংশ্লিষ্টরা কাজ কিছু করে চলে যান। পরবর্তীতে বর্ষার কারণে কাজ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়ে দেয়। ফলে প্রতি বছর বেড়ীবাঁধ খোলাই থাকে। সমগ্র গোমাতলী জোয়ার-ভাটায় পরিণত হয়। ক্ষতিগ্রস্থ হয় মানুষের বসতবাড়ি, রাস্তা ঘাট ও জমি।

কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান নির্বাহী সবিবুর রহমান জানান, প্রকল্পটির প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ দিয়ে কাজ শুরু করা হয়েছে। ঠিকাদারের গাফেলতির কারনে কাজে ধীরগতি হচ্ছে।

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

কর্ণফুলীতে সড়ক দুর্ঘটনায় পিডিবির কর্মচারী নিহত

পশ্চিম মেরংলোয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

উন্নয়ন কাজের গুণগতমান নিশ্চিতে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার

বিশ্ব হাফেজ গড়ার কারিগর ক্বারী নাজমুলের সাথে দারুল আরক্বমের শিক্ষার্থীদের একদিন

বাংলাদেশের জনপদে ইসলামের আগমন

লামায় টেকনিক্যাল স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হবে -জেলা প্রশাসক মো. দাউদুল ইসলাম

লামা মাহিন্দ্র চালক সমিতির সদস্যের মৃত্যুতে ১২ হাজার টাকা সহায়তা প্রদান

এসআইটিতে ‘আইটি ক্যারিয়ার হোক ভিশন ২০২১ পূরণের হাতিয়ার’ শীর্ষক সেমিনার

নুরুল বশর-জালাল-নাসিরসহ কুতুবদিয়া বিএনপি’র ১৪ নেতার জামিনে মুক্তিলাভ

ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে চায় মংলা মার্মা

ভাগ্যবান লোকদের আল্লাহ নেয়ামত হিসাবে উপহার দেন কন্যা সন্তান!

চমেকে অচল রেডিওথেরাপি মেশিন : চিকিৎসা না পেয়ে ফিরে যাচ্ছে রোগী

সংরক্ষিত আসনে আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন মনোয়ারা বেগম মুন্নি

এনজিওদের প্রতিরোধের ঘোষনা স্থানিয়দের

কালারমারছড়ার চেয়ারম্যান তারেককে হত্যার শপথ!

চট্টগ্রামে ঘুষের টাকাসহ আটক কর্মকর্তা নাজিম উদ্দিনের ১ দিনের রিমান্ড

অধ্যাপিকা এথিন রাখাইনকে সংসদ সদস্য মনোনীত করার দাবী ‘ডিঙি ফাউন্ডেশন’র

প্রথম আলো গণিত উৎসব শুক্রবার

চকরিয়া পৌরসভায় হাজারো নারী-পুরুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

সুশাসন প্রতিষ্ঠায় দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন গড়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর