শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টার আরেক মামলায় ১১ জনের যাবজ্জীবন

সিবিএন ডেস্ক:
আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টার বিস্ফোরক আইনের মামলায় ১১ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে এ মামলায় অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় একজনকে খালাস দেওয়ার আদেশ দিয়েছেন বিচারক।

আজ রোববার বিকেলে ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ জাহিদুল কবির এ দিন ধার্য করেন। গত ১৬ অক্টোবর মামলার শুনানি শেষে এ দিন নির্ধারণ করা হয়েছিল।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর আবদুল্লাহ আবু সাংবাদিকদের বিষয়টি জানিয়েছেন।

এর আগে এই মামলার হত্যাচেষ্টার জন্য দণ্ডবিধির দুটি ধারায় পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের অস্থায়ী এজলাসে একই বিচারক মো. জাহিদুল কবির ১১ জনকে ২০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ডদেশ দিয়েছিলেন। একই সঙ্গে তাঁদের ৪০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরো এক বছর করে কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন—লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুর রশীদ, মিজানুর রহমান, মো. শাজাহান বালু, গাজী ইমাম হোসেন, গোলাম সারোয়ার ওরফে মামুন, জজ মিয়া, ফ্রিডম সোহেল, সৈয়দ নাজমুল মাকসুদ মুরাদ, খন্দকার আমিরুল ইসলাম কাজল, জাফর আহমেদ ও হুমায়ুন কবির ওরফে হুমায়ুন।

এ ছাড়া অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় হুমাউন কবির ওরফে কবিরকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ১৯৮৯ সালের ১০ আগস্ট মধ্যরাতে ফ্রিডম পার্টির নেতৃত্বে শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের বাসভবনে গুলি ও গ্রেনেড নিক্ষেপ করা হয়। তিনি তখন ওই বাসাতেই থাকতেন এবং ঘটনার সময় ওই বাড়িতেই অবস্থান করছিলেন।

এ ঘটনায় বাড়ির নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, ফ্রিডম পার্টির সদস্য কাজল ও কবিরের নেতৃত্বে ১০-১২ জনের একটি দল ৩২ নম্বরের বাড়িতে অতর্কিতে গুলিবর্ষণ ও বোমা হামলা করে এবং হামলাকারীরা তখন ‘কর্নেল ফারুক-রশিদ জিন্দাবাদ’ বলে স্লোগান দিতে দিতে পালিয়ে যায়।

পরবর্তী সময়ে মামলাটি তদন্ত করে ১৯৯৭ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি ১১ জনকে অভিযুক্ত করে দণ্ডবিধি ও বিস্ফোরক আইনের দুটি অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ।

মামলার আসামিরা হলেন—গোলাম সারোয়ার ওরফে মামুন, জজ মিয়া, ফ্রিডম সোহেল, সৈয়দ নাজমুল মাকসুদ মুরাদ, গাজী ইমাম হোসেন, খন্দকার আমিরুল ইসলাম কাজল, মিজানুর রহমান, হোমায়েন কবির, মো. শাজাহান বালু, লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুর রশীদ, জাফর আহমেদ ও এইচ কবির।

আসামিদের মধ্যে প্রথম চারজন কারাগারে, শেষের তিনজন পলাতক এবং অপর আসামিরা জামিনে রয়েছেন।

২০০৯ সালের ৫ জুলাই আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

মাদকবিরোধী অভিযানের সঙ্গে সমাজে ফেরার সুযোগও দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

টেকনাফে গ্রেপ্তার মাদকের আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

এনজিওতে স্থানীয়দের ছাঁটাই উদ্বেগের

রাখাইনে আরসা’র হামলায় ৬ বিজিপি সদস্য আহত: মিয়ানমার

সিঙ্গাপুরে গেলেন এরশাদ

উখিয়ায় দু’টি প্রতিষ্ঠানের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন মন্ত্রীপরিষদ সচিব

লামায় আওয়ামী লীগের আরও ৩ নেতাকর্মীর দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

কৃষি জমির মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়

ভূমধ্যসাগরে পৃথক জাহাজডুবিতে নিহত ১৭০ অভিবাসী

স্থানীয় ছাঁটাইয়ের নেপথ্যে

এবার ছেলে সন্তানের মা হলেন টিউলিপ সিদ্দিক

অধ্যাপিকা এথিন রাখাইনকে সাংসদ হিসেবে দেখতে চায় কক্সবাজারবাসী

ভালো মানুষ হয়ে শিক্ষার্থীদের দেশ গঠনের কাজে অংশ নিতে হবে-অধ্যক্ষ ফজলুল করিম

চকরিয়া সরকারি কলেজে যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কল্পে র‌্যালী ও আলোচনা সভা

কক্সবাজার ইনস্টিটিউট ও পাবলিক লাইব্রেরির দ্রুত সংস্কারের দাবীতে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন

নাইক্ষ্যংছড়িতে সাড়ে ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে কলেজের দুই নতুন ভবনের কাজ শুরু

এমপি জাফরের নেতৃত্বে চকরিয়া-পেকুয়ার বিপুল নেতাকর্মীর বিজয় সমাবেশে যোগদান

উৎসবমুখর পরিবেশে ‘বাংলাদেশ প্রেসক্লাব ইউএই’র বর্ণিল অভিষেক

ভারতের রাজস্থানে সোয়াইন ফ্লু’তে, ৪০ জনের মৃত্যু

জীবন দিয়ে হলেও ভোটের মর্যাদা রক্ষা করব : প্রধানমন্ত্রী