জাতীয় সমবায় পুরস্কার হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী : বদরখালী সমিতিকে শীর্ষে নিয়ে গেলেন ইকবাল বদরী

কক্সবাজার রিপোর্ট :
দেশের শ্রেষ্ঠ সমবায় সমিতি হিসেবে ‘জাতীয় সমবায় পুরস্কার-২০১৫’ এর জন্য নির্বাচিত হয়েছে চকরিয়ার বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতি। এই সমিতির মনোনীত প্রতিনিধিরা আগামী ৪ নভেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় সমবায় দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে পুরস্কার গ্রহন করার কথা রয়েছে। দেশের প্রায় এক লাখ ৮০ হাজার সমবায় সমিতির মধ্য থেকে এ সমিতি পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হওয়ার বিষয়টিকে বিশাল প্রাপ্তি হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্ঠরা।
সমবায় কর্মকর্তা ও সমিতির সভ্যদের দাবী, সমিতির ব্যবস্থাপনা কমিটির বর্তমান সম্পাদক এ.কে.এম ইকবাল বদরীর কর্তব্য নিষ্ঠা, সততা ও স্বচ্ছতার কারনে এ স্বীকৃতি অর্জন সম্ভব হয়েছে। মূলত তার হাত ধরেই সমিতি এগিয়েছে বহুদূর।
চকরিয়া উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান বলেন, ‘এ সমিতির সাথে যুক্ত সকলের আন্তরিকতা ও সম্মিলিত প্রচেষ্টার কারনে এত বড় অর্জন সম্ভব হয়েছে। বিশেষ করে সমিতির সম্পাদক ইকবাল বদরী দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে কাজ করেছেন। তার সময়ে সমিতির কোন অর্থের অপচয় হয়নি। সম্প্রতি প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সমিতির ভবন নির্মাণ করা হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘দেশে প্রায় এক লাখ ৮০ হাজার সমবায় সমিতি আছে। এর মধ্য থেকে জাতীয় সমবায় পুরস্কার-২০১৫ এর জন্য ‘কৃষিভিত্তিক/সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন’ শ্রেণীতে চূড়ান্তভাবে এ সমিতিকে নির্বাচন করেছে সমবায় অধিদপ্তর। গত ১৮ অক্টোবর সমবায় অধিদপ্তরের উপ নিবন্ধক (ইপি) কাজী মেসবাহ উদ্দীন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক পত্রে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। এটি অনেক বড় অর্জন। আমি নিজেও আজ এ সমিতির জন্য গর্বিত। চকরিয়া ও গোটা জেলাবাসীর জন্য এই পুরস্কার অনেক বড় প্রাপ্তি।’
বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতি ব্যবস্থাপনা কমিটির সাবেক সম্পাদক ইবনে আদম জাহান বলেন, ‘সমিতিটি প্রায় ৪০ বছর যাবৎ দুর্নীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছিল। এটিকে দুর্নীতিমুক্ত করেছেন বর্তমান সম্পাদক ইকবাল বদরী। তিনি দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে সমিতির অনেক উন্নতি হয়েছে। তিনি স্বচ্ছতা ও ন্যায়নিষ্ঠার মাধ্যমে সমিতিকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়েছেন। বর্তমানে সমিতির বার্ষিক আয় ৩ কোটি টাকার বেশি। আগে কখনও এক কোটি টাকার বেশি আয় হয়নি। গত চার বছর ধরে আয় ক্রমান্বয়ে বেড়েছে। তাঁর (ইকবাল বদরী) সময়ে সমিতির উপ-আইন পরিবর্তন করায় সমিতির সভ্যদের মাঝে দুর্নীতির প্রবনতা হ্রাস পেয়েছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘এখন চার কোটি টাকা ব্যয়ে সমিতির যে ভবন হয়েছে, তা আরও ১০ বছর আগে হতে পারতো। আগে যা সম্ভব হয়নি তা করে দেখিয়েছেন ইকবাল বদরী। তিনি যে স্বচ্ছতার সাথে কাজ করেছেন, তার প্রমাণ এ জাতীয় পুরস্কার।’
সমিতি সূত্রে জানা গেছে, ১৯২৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এ সমবায় সমিতি নিবন্ধন লাভ করে ১৯৩০ সালে। শুরুতে সমিতির সভ্য ছিলেন ২৬২ জন। এখন এ সমিতির সভ্য সংখ্যা প্রায় দেড় হাজার। সমিতিটি ইতোমধ্যে পুরো দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার বৃহত্তম সমবায় সমিতি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। সর্বশেষ সমিতির সাফল্যের পালকে যুক্ত হচ্ছে, জাতীয় সমবায় পুরস্কার।

সর্বশেষ সংবাদ

এডভোকেট রানা দাশগুপ্তের সাথে কক্সবাজার জেলা নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়

ইসলামে মাতৃভাষার গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ঈদগাঁওতে পুজা কমিটির সম্মেলন নিয়ে সংঘাতের আশংকা

কক্সবাজার সিটি কলেজে শিক্ষকদের জন্য আইসিটি প্রশিক্ষণ শুরু

উখিয়ায় হাতির আক্রমণে রোহিঙ্গা যুবকের মৃত্যু

এস আলম গ্রুপের ৩ হাজার ১৭০ কোটি টাকার কর মওকুফ

মালয়েশিয়ায় ভবনে আগুন : বাংলাদেশিসহ নিহত ৬

মহেশখালীতে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে মোস্তফা আনোয়ার

চকরিয়ায় ইয়াবাসহ দুই ব্যবসায়ী আটক

চকরিয়ার চেয়ারম্যান পদে ২ জনসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল

কোর্টরুমে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে হবে : প্রধান বিচারপতি

পেকুয়ায় স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ ও গাছ জব্দ

অধ্যাপক শফিউল্লাহ একজন চেইঞ্জ মেকার

মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন ২০১২ এর উপর কর্মশালা

চকরিয়ায় জায়গার বিরোধে গোলাগুলিতে নিহত-১, গুলিবিদ্ধ-১৫

‘মাদকের একাধিক তালিকায় সোহাগের নাম আছে’

কুতুবদিয়াকে দ্বীপ উপজেলা ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ

চকরিয়া মহাসড়ক কিনারায় বেপরোয়া পার্কিং, ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় ৪ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

প্রথম বিয়ে নিয়ে লুকোচুরি: একাই ঘুমের মধ্য শামীমকে খুন করে আশা