পেকুয়ায় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল দশা

ইমরান হোসাইন, পেকুয়া:

পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের সোনালী বাজার গণপাঠশালা ও পেকুয়ার চর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিরাজ করছে করুণ অবস্থা। স্কুল দু’টি হচ্ছে ২০১৩সালে সরকারীকরণ করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, ১৯৭৫সালে প্রতিষ্টিত পেকুয়ার চর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। ২০১৩সালে সরকারীকরণ হয় সোনালী বাজার গণপাঠশালা। পেকুয়ার চর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২জন আর সোনালী বাজার গণপাঠশালায় রয়েছে ৩জন শিক্ষক।

সোমবার (২৩অক্টোবর) দুপুরে সরেজমিনে স্কুল দুটিতে গিয়ে দেখা যায়, ভবন যেমন ঝুঁকিপূর্ণ তেমনি শিক্ষার্থীর সংখ্যাও খুবই নগণ্য। স্কুলের শিক্ষক সংকট ও ঝুঁকিপূর্ন ভবন মেরামতের জন্য শিক্ষা দপ্তর বরাবরে বারবার ধরনা দিয়েও কোন ধরণের সুরহা হচ্ছেনা। এ স্কুলগুলোতে কর্তৃপক্ষের তদারকি নাই বললে চলে। এছাড়াও জাতীয় পতাকার অবমাননার চিত্র ধরা পড়েছে গণপাঠশালায়।

স্থানীয়রা আরো জানান, ২০১৩সালে সোনালী বাজার গণপাঠশালটি সরকারীকরণ হওয়ার আগে শতাধিক শিক্ষাথী নিয়ে একটি এনজিও সংস্থা স্কুলটি চালাত। শিক্ষার কার্যক্রম চলত একটি পরিত্যক্ত ঝুঁকিপূর্ন ভবনে। ২০১৩ সালে স্কুলটি সরকারীকরণ হলে হতবাক হয়ে যান স্থানীয় সুশীল সমাজ ও শিক্ষানুরাগীরা। তার পার্শ্বে আরেকটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বিদ্যমান থাকায় পেকুয়া শিক্ষা অধিদপ্তরের কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে গণপাঠশালাটি সরকারীকরণ হওয়ায় সে সময় শিক্ষা মন্ত্রানালয় বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন স্থানীয়রা। সেটিরও কোন ধরণের সুরহা হয়নি বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে পেকুয়ার চর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনে রয়েছে ৩টি রুম। ৩টি রুমেই চলে ১ম থেকে ৫ম শ্রেনীর লেখাপড়া। রুমের ভিতরে রযেছে বড়বড় গর্ত। আসবাপপত্রের অবস্থাও করুণ। আসবাপপত্রের অভাবে একটি রুমের মাঠিতে বসে লেখাপড়া করছে শিক্ষার্থীরা। পার্শ্ববর্তি পরিত্যক্ত একটি ভবনে রয়েছে শিক্ষকদের জন্য আলাদা একটি রুম। সেই রুমটির অবস্থাও খুবই ভয়াবহ। যেকোন মূহর্তে ভেঙ্গে পড়ে হতাহতের আশংকা রয়েছে। রুম মেরামতের জন্য প্রধান শিক্ষক নিজেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত আবেদন করলেও কোন ধরণের সহযোগিতা করেনি।

সরেজমিন গিয়ে গণপাঠশালায় শিক্ষক ফেরদৌসি আকতার ও হামিদা বেগমকে পাওয়া গেলেও প্রধান শিক্ষক রেহেলা বেগমকে পাওয়া যায়নি। ছিলনা কোন শিক্ষার্থী। শিক্ষার্থীরা কোথায় প্রশ্ন করলে শিক্ষক ফেরদৌসি আকতার বলেন তাদেরকে দুপুরের খাওয়ার জন্য ছুটি দেওয়া হয়েছে।

প্রধান শিক্ষকের সাথে মোঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, স্কুলের কাজে তিনি উপজেলায় রয়েছেন। তার স্কুলে জাতীয় পতাকার এ অবস্থা কেন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, দপ্তরি না থাকায় দেখভাল করা সম্ভব হচ্ছেনা। তাৎক্ষনিক উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মোঠোফোনে কয়েকবার কল দিলেও তিনি মোবাইল রিসিভ করেননি।

পেকুয়ার চর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম বলেন, অপর একজন শিক্ষক অসুস্থতার কারণে স্কুলে আসতে পারেনি। একটি লিখিত আবেদন এ প্রতিবেদকের হাতে দিয়ে তিনি বলেন, কক্ষ মেরামতের জন্য লিখিত আবেদন করা হয়েছে গত ২৬ জুলাই। আবেদনটি পেয়ে দেখতেও আসেন নাই । শিক্ষক সংকটের বিষয়টি জানালো হলেও কোন সুরহা হয়নি। এছাড়াও কক্ষের অভাবে শিক্ষকেরাও ঝুঁকিপূর্ন ভবনে অবস্থান করেন।

 

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজার কলেজ বাংলা বিভাগের শিক্ষা সফর : ব্যক্তিগত অনুভূতি

কক্সবাজারে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নতুন সভাকক্ষ উদ্বোধন

যুবসমাজের আনন্দায়োজন: কিছু ভাবনা , কিছু কথা…

সর্বক্ষেত্রে আল্লাহর নির্দেশ মেনে চলার নাম ইবাদত

উখিয়ায় উপজেলা নির্বাচনী হাওয়া : মাঠে বীর মুক্তিযোদ্ধা জাফর আলম চৌধুরী

চাকরি প্রত্যাশিদের তালিকা তৈরি কার্যক্রমের উদ্বোধন করল ‘জাগো উখিয়া’

শহীদ জিয়ার জন্মবার্ষিকীতে সুবিধাবঞ্চিত ও দুস্থদের পাশে চ.বি ছাত্রদল

মালয়েশিয়া প্রবাসী যুবককে মুঠোফোনে হুমকির অভিযোগ

দূর্গম পাহাড়ে স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত হলো ১০ কি:মি: রাস্তা

পেকুয়ায় ইমামকে কুপিয়ে আহত

উখিয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ জামিনে মুক্ত

মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন’র পিএইচডি ডিগ্রী লাভ

কক্সবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নতুন নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আব্দুল কাদের গণি

শেখ হাসিনার বদান্যতায় মাথা গোজার ঠাঁই পেল গৃহহীন ১২৬ পরিবার

বিশ্বের সর্বাধিক হতদরিদ্র মানুষের বাস ভারতে

সবচেয়ে ‘কিউট’ কুকুরের মৃত্যু

চট্টগ্রামে ইয়াবা নিয়ে রোহিঙ্গা দম্পতিসহ গ্রেপ্তার ৪

মাদকবিরোধী অভিযানের সঙ্গে সমাজে ফেরার সুযোগও দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

টেকনাফে গ্রেপ্তার মাদকের আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

এনজিওতে স্থানীয়দের ছাঁটাই উদ্বেগের