সংবাদদাতা:
কক্সবাজার-টেকনাফ মেরনি ড্রাইভ সড়ক সংলগ্ন বাহারছড়া ইউনিয়ন ভুমি অফিস এলাকায় ডাকাতের কবলে পড়েছে টেকনাফের  বাহারছড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন ও  ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান।

এই সময় ডাকাতরা অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে জিয়াউর রহমানকে ছুরিকাহত করে টাকা পয়সা ও ল্যাপটপ নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা জড়ো হলে ডাকাতরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

রোববার দিবাগত রাত ১০ টায় এই ঘটনা ঘটে।

এঘটনায় যুবলীগ সভাপতি বেশি আহত না হলেও জিয়াউর রহমান কক্সবাজার সদর হাসপাতলে চিকিৎসাধিন রয়েছে। এতে স্থানীয় আওয়ামী লীগসহ অংগ সংগঠনের নেতারা ঘটনায় ক্ষোভ ও তীব্র নিন্দা জানান।

জানা যায়, জিয়াউর রহমান ও দেলোয়ার হোসনে তাদের ব্যক্তিগত কাজ শেষে কক্সবাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে মেরনি ড্রাইভ সড়ক সংলগ্ন বাহারছড়া ইউনিয়ন ভুমি অফিসের সামনে পৌঁছলে আগে থেকে উৎপেত থাকা সংঘবদ্ধ ডাকাতরা তাদের মোটরসাইকেলে গতি রোধ করে ডাকাতি করে। ওই সময় তাদের কাছে থাকা টাকা পয়সা লুট করে নিয়ে যায়। বিশেষ করে জিয়াউর রহমানের কাছ থেকে তার সাথে থাকা ল্যাপটসহ টাকা পয়সা মোবাইল নিয়ে যায়। পরে তাদের চিৎকারে এলাকাবাসী জড়ো হলে ডাকাতরা পালিয়ে যায়।

আহত জিয়াউর রহমান জানান, ডাকাত দলের কয়েকজনকে তিনি চিনেছে। তারা হলো- একই এলাকার মোঃ আলী প্রকাশ মুন্নিয়া, তার সহযোগী হান্নান, মমতাজ ও রুশন আলী। সাথে রয়েছে আজ্ঞাতনামা আরো ৭/৮ জন।

এলাকাবাসীর দাবী এর আগে ওই ব্যক্তিরা এলাকায় ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত ছিল। বহুমলার পলাতক আসামী মুন্নিয়ার বিরুদ্ধে মানব পাচার ও মাদকসহসহ একাধিক বিভিন্ন অপরাধের মামলা রয়েছে।

এই সংঘবদ্ধ চক্র এলাকায় করছে না এমন কোন অপরাধ নেই। তাদের কারণে এলাকাবাসী জিম্মি হয়ে পড়েছে। এই ঘটনায় টেকনাফ মডেল থানায় মামলা প্রক্রিয়া চলছে বলে জনিয়েছে আহতের পরিবার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •