পানিবন্দি গোমাতলীর ৮ গ্রাম

প্রকাশ: ২১ অক্টোবর, ২০১৭ ০৮:০৪ , আপডেট: ২১ অক্টোবর, ২০১৭ ০৮:০৭

পড়া যাবে: [rt_reading_time] মিনিটে


পানিতে তলিয়ে যাওয়া গোমাতলী।

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
কক্সবাজার সদর উপজেলার পোকখালী ইউনিয়নের বৃহত্তর গোমাতলীর আট গ্রাম জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। শনিবার সকাল থেকে গ্রামগুলো পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। এতে এসব গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

চেয়ারম্যান জানান, ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর মহেশখালীর চ্যানেল সংলগ্ন বেড়িবাঁধ আর সংস্কার করা হয়নি। এই কারণে তখন থেকে পোকখালী ইউনিয়নের গোমাতলীর (৭,৮,৯ নং ওয়ার্ড) আটটি গ্রামের জোয়ার-ভাটা চলে আসছে। গ্রামগুলো হলো, উত্তর গোমাতলী (রাজঘাট), গাইট্টাখালী, রাবঢইন্ন্যাপাড়া, চরপাড়া, পূর্বগোমাতলী, কোনাপাড়া, আইছিন্নপাড়া, পশ্চিমগোমাতলী।এর মধ্যে শনিবার বিরূপ আবহাওয়া বিরাজ করলে পানিতে বেড়ে গিয়ে ওইসব গ্রামগুলো পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে।

তিনি আরো জানান, পানিতে তলিয়ে গেছে বিস্তীর্ণ এলাকার চিংড়িঘের। পান্দিবন্দি থাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।

জাতীয় পরিবেশ মানবাধিকার সোসাইটির চেয়ারম্যান ও স্থানীয় বাসিন্দা এস.এম সৈয়দ উল্লাহ আজাদ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে গোমাতলীর মানুষ পানির ভেতরে বসবাস করছে। জোয়ারের সময় পানি উঠে। আর ভাটার স ময় নেমে যায়। এভাবে সামাহীন দুর্ভোগ নিয়ে এখানকার মানুষ জীবন যাপন করলেও কর্তৃপক্ষের কোনো ধরণের নজরদারি নেই।

পোকখালী ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বলেন, বিরূপ আবহাওয়ার কারণে সাগরে পানি বাড়ায় গোমাতলীর গ্রামগুলো পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। রাতে পানি আরো বাড়া আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই লোকজন উঁচু এলাকায় সরে আসতে বলা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, রোয়ানুতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর বেড়িবাঁধ সংস্কারের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে বেশ কয়েকবার লিখিতভাবে আবেদন জানিয়েছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •