রাখাইন থেকে ফুফুর সাথে পালিয়ে এসে হারিয়ে যায় ছেনুয়ারা

আমান উল্লাহ আমান, টেকনাফ (কক্সবাজার) :

রাখাইনের মংডু থেকে গত এক মাস আগে ফুফুর সাথে এদেশে পালিয়ে আসে ছেনুয়ারা বেগম (১২)। তার পিতা মাওঃ নুরুল ইসলাম সৌদি আরবের মক্কা প্রবাসী। মিয়ানমারে সহিংসতা শুরুর আগে ফুফু ফাতেমা বেগমের বাড়ীতে বেড়াতে যান ইয়াছমিন । হঠাৎ করে ২৫ আগস্ট সহিংসতা শুরু হলে সে আর নিজ বাড়ী মংডু হাইচ্ছুরাতার বিয়ামুপাড়ায় যেতে পারেনি। এদেশে পালিয়ে এসে হারিয়ে যান ফুফুর পরিবার থেকে। বর্তমানে ছেনুয়ারা বেগম টেকনাফ হ্নীলার জাদীমুরা গ্রামের মফজুলুর রহমানের বাড়ীতে আশ্রয়ে রয়েছে।

১৫ অক্টোবর রবিবার সকালে ছেনুয়ারা বেগমের সাথে এ প্রতিবেদকের কথা হয়। এসময় জানা গেছে রূপকথার মতো কাহিনী।

সে জানায়, ২৫ আগস্ট রাখাইনে মগ মিলিটারির বাহিনী চারদিকে আক্রমন করেছে। লঞ্চার মেরে ঘরবাড়ী জ্বালিয়ে দিচ্ছে, প্রাণ বাঁচাতে পালিয়ে যাওয়ার সময় নারী-পুরুষ শিশুদের নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করে এবং অনেক শিশুকে আগুনে নিক্ষেপ করে মারছে। এসময় তারাও হাইচ্ছুরাতা গ্রাম থেকে পালিয়ে অন্য এক গ্রামে আশ্রয় নিয়েছে। কয়েক দিন অবস্থান করার পর সেই গ্রাম থেকে গত ২০ সেপ্টেম্বরের দিকে রাতের আধাঁরে পেরানপ্রু ঘাট দিয়ে ফুফুর পরিবারের সাথে নাফ নদ পার হয়ে নাইট্যংপাড়া সীমান্ত দিয়ে এদেশে পালিয়ে আসে। এপারে এসে সকালে বাস স্টেন্ডে অবস্থান করে। ওই সময় ছেনুয়ারা মসজিদের টিউবওয়েলে পানির জন্য যায়। পানি নিয়ে এসে দেখে ফুফু নেই। সে চারদিকে খুঁজাখোঁজি করে না পেয়ে কাঁদতে থাকে। পরে জানতে পারে পুলিশ তার ফুফুর পরিবারকে কুতুপালংয়ের উদ্দেশ্যে গাড়ীতে তুলে দিয়েছে। তার কান্না দেখে কয়েকজন মৌলভী এক হাজার টাকা ধরিয়ে দিয়ে তাকেও অন্যান্য রোহিঙ্গাদের সাথে কুতুপালংয়ের একটি গ্রাড়ীতে উঠিয়ে দেয়। সেখানে একটি পরিবারের সাথে ৫/৬ দিন থাকার পর মা ও ভাই-বোনদের জন্য কাঁদলে পুনরায় টেকনাফে পাঠিয়ে দেয় ওই পরিবারটি। মাইক্রোবাস যোগে আসার সময় ছেনুয়ারার কান্না দেখে জাদীমুরার এক মহিলা তার সাথে কথা বলে এবং তাকে বাড়ীতে নিয়ে যায়।

সে আরো জানায়, রাখাইনে তার মা, ১ বোন ও ৩ ভাই রয়ে গেছে। এখন তারা কি অবস্থায় আছে খবর পাচ্ছেনা। এমনকি সৌদি আরবে পিতার সাথেও কথা বলতে পারছে না। যে কাগজে নাম্বার লিখা ছিল তাও ফুফুর ব্যাগে রয়ে গেছে। কথাগুলো বলার সময় ছেনুয়ারার দু’চোখ ছলছল করছিল। এসময় ওই ঘরের কয়েকজন তাকে সান্তনা দিচ্ছে।

বর্তমানে ছেনুয়ারা হ্নীলার মফজলুর রহমানে বাড়ীতে ১০ দিন যাবৎ আশ্রয়ে রয়েছে। আত্মীয় স্বজনের খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। কাউকে না পেলে সরকারী-বেসরকারী সংস্থার কাছে তাকে সমর্পন করবে বলে জানিয়েছেন ওই আশ্রয়দাতা।

জাদীমুরা রোহিঙ্গা বস্তীর কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শুধু ছেনুয়ারা নই, এমন মা-বাবা হারানো রোহিঙ্গা শিশু শত শত রয়েছে রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে। মা-বাবা, ভাই-বোন, আত্মীয় স্বজন হারানো রোহিঙ্গাদের চোখে এখন পানি নেই। সব পানি শুকিয়ে গেছে। আছে বুক ফাটা আর্তনাদ। রাখাইনের বিভীষিকাময় দিনগুলি ভুলতে চাইলেও ভুলতে পারছেনা তারা। এখন শুধু রাখাইনে শান্তি ফিরে পেতে চাই এবং নিজ দেশে চলে যেতে চাই।

সর্বশেষ সংবাদ

প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ  আর নেই

কক্সবাজারের ৫ উপজেলায় ভোটযুদ্ধ আজ

এমপি জাফর আলমের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করতে গেলেন সাঈদী

ইসরায়েল লুটেরা রাষ্ট্র : মাহাথির মোহাম্মদ

 বাবার মত আমিও আপনাদের সেবা করে মরতে চাই- নৌকার প্রার্থী জুয়েল

ইস্তাম্বুলে ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে জরুরী বৈঠক

টেকনাফের নির্বাচনে বিশৃঙ্খলা করলেই অ্যাকশন যাবো : এসপি মাসুদ হোসেন

২৭ মার্চ উমিদিয়া জামেয়া ইসলামিয়ার বার্ষিক মাহফিল

ঝুঁকিতে ‘গোমাতলী বেইলী’ ব্রীজ

সেই রাফিয়ার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজী রাসেল

রামু পশ্চিম মনিরঝিল দরগাহ পাড়ায় তাফসীরুল কোরআন মাহফিল সম্পন্ন

 “আল মাহমুদ চেতনার কবি, প্রেরণার বাতিঘর” শীর্ষক আলোচনা সভা

জেলা আইনজীবী সহকারী সমিতির নির্বাচনে নুরুল আমিন-তুহিন প্যানেলের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা 

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার-৬

এতিম শিশুদের জন্য বনভোজনের আয়োজন করলেন ছাত্রলীগ নেতা আসফি

আল্লামা তকী উসমানীর উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে কক্সবাজারে হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ

সাঈদী ফুল নিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে গেলেন গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী’র কাছে

অবৈধভাবে ব্যালট পেপারে হাত দিলেই গুলি- মহেশখালীর ওসি

ইউএনও বীনার ঘর আলোকিত করল নতুন অতিথি

কক্সবাজার সদর ও কুতুবদিয়া উপজেলায় রোববারের সাধারণ ছুটি কি এখনো বহাল!