রেজু গর্জন বনিয়া স: প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চার শিক্ষকের মানবেতর জীবনযাপন

আব্দুর রশিদ, বাইশারী :
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবস্থিত ঘুমধুম ইউনিয়নে রেজু গর্জনবনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। নামেই মাত্র সরকারী। কিন্তু সরকারের সকল সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত এই বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকারা। দীর্ঘ ২৫ বছর যাবত বেতন ভাতা ছাড়া প্রত্যন্ত অঞ্চলের পাহাড়ী-বাঙ্গালী ছেলেমেয়েদের পাঠদান দিয়ে আসছে শিক্ষকেরা। বিদ্যালয়টি বর্তমানে জাতীয়করণের আওতায় আসলেও কোন শিক্ষক-শিক্ষিকা এ পর্যন্ত বেতন ভাতার মুখ দেখেনি।
নীতি-নৈতিকতায় এ দরিদ্র শিক্ষকেরা ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান চালিয়ে গেলেও পরিবারিক অভাব গোছাতে দুর্বিসহ জীবনযাপন করছেন তারা। মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন শিক্ষকেরা। এ কথাগুলো জানালেন স্থানীয় সাংবাদিকদের নিকট।
গতকাল এই প্রতিবেদক সরজমিনে সীমান্ত লাগোয়া পাহাড়ী জনপদ ৫৫ নং রেজুগর্জনবনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের সাথে আলাপকালে বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ হামজা কান্না বিজড়িত অবস্থায় বলেন, ১৯৯২ সালে দুর্গম পাহাড়ী জনপদ উপজাতীয় অধ্যুষিত এলাকার কথা চিন্তা করে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয় এলাকার সকলকে নিয়ে। সেই থেকে আজ পর্যন্ত চলছে বিনা বেতনে। চারজন শিক্ষক আশার আলো নিয়ে দিন গুণছে।
প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ হামজা আরো বলেন, বিদ্যালয়টি এ পর্যন্ত টিকিয়ে রাখতে তার সহায় সম্পদ পর্যন্ত বিক্রি করে দিতে হয়েছে। তিনি আক্ষেপের সুরে আরো বলেন, বিদ্যালয়টি গেল বার জাতীয়করণে আওতায় আসার পর থেকে একটি মহল ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তাছাড়া ঐ ষড়যন্ত্রকারী উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সব সময় ভুল বুঝিয়ে কানভারী করছেন বলেও তিনি জানান। সবকিছু মিলিয়ে কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণও তিনি তুলে ধরেন। এছাড়া বিদ্যালয়টির ছাত্র-ছাত্রীরা এখনো পর্যন্ত উপবৃত্তিও পাচ্ছে না বলে তিনি জানান।
বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি প্রবীন মানুষ উপেন্দ্র লাল তঞ্চঙ্গ্যা কারবারী বলেন, বিদ্যালয়ে চারজন শিক্ষক ও শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। বিগত দিনে সমাপনী পরীক্ষায় শতভাগ পাশ সহ নিয়মিত পাঠদান দিয়ে আসলেও বেতন ভাতা না পাওয়ায় কর্তব্য কাজে নিরোৎসাহ হয়ে পড়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দা ও উপজেলা পরিষদের সদস্য শ্রীমতী ছিংমে তঞ্চঙ্গ্যা বিদ্যালয়টির সার্বিক উন্নয়ন ও বেতনভাতার ব্যাপারে মাসিক আইন শৃঙ্খলার সভায় তিনি উপস্থাপন করেছেন বলে জানান।
স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল কান্তি চাকমা বলেন, বান্দরবান জেলা পরিষদ থেকে ২০১৬-১৭ অর্থ বৎসরে বিদ্যালয়ের অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হলেও বসার জন্য আসবাবপত্র সংকট, বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা, টয়লেট বাথরুম সহ এখনো নানা সমস্যায় জর্জরিত। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার বান্দরবান পার্বত্য জেলায় শিক্ষার মান উন্নয়নে অধিকতর বরাদ্দ রাখলেও এ বিদ্যালয়টি বারবার উন্নয়ন বঞ্চিত হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে এলাকার বাসিন্দাদের ও প্রশ্ন।
এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবু আহমেদ বলেন, আমার এখানে কোন সমস্যা নাই। এ ব্যাপারে আমিও চিন্তিত। বিদ্যালয়টির ফাইল বর্তমানে জেলা পরিষদে আটকে আছে। যার ফলে এই দুরাবস্থা।

সর্বশেষ সংবাদ

ই-ফাইলিং এ কক্সবাজার জেলা প্রশাসন সারাদেশে দ্বিতীয়

নাফে মাছ ধরার অনুমতি ও ইয়াবা বন্ধে সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দিন : এমপি শাহীন আক্তার

সিবিএন এর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সৌদি প্রবাসী বিএনপি নেতা ফরিদের শুভেচ্ছা

এমপি বদি’র সাথে ইউএই টেকনাফ সমিতি’র সৌজন্য সাক্ষাৎ

চাকরিচ্যুতির ভয় দেখিয়ে উপজাতি এনজিও কর্মীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ 

বন্ধ হলো অনলাইনে জুয়া খেলার ১৭৬ সাইট

শাজাহান খানকে সংসদে বেশি কথা বলতে দেয়ায় প্রতিবাদ

যুদ্ধ বিমানের প্রহরায় পাকিস্তানে নামলেন সৌদি যুবরাজ

অনুমোদন পেল আরও তিন ব্যাংক

আ’লীগের ভাবমুর্তি উজ্জ্বল করতে জনগনের সমর্থন চাই : ফজলুল করিম সাঈদী

তিন দিনের সফর শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কক্সবাজার ত্যাগ

শহরে দুর্বৃত্তদের হামলায় অন্তঃসত্ত্বাসহ ৯ নারী আহত

কৈয়ারবিল আইডিয়াল হাই স্কুলে অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

কুতুবদিয়ায় মাহিন্দ্রা গাড়ী দূর্ঘটনায় স্কুল ছাত্র আহত

নির্বাচিত হলে শাসক নয়, সেবক হয়েই কাজ করবো- গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী

রামুতে রেল লাইনে যাচ্ছে ব্যক্তি মালিকানাধিন জমির বালি

কেরুনতলী ইউনিয়ন ভূমি অফিসে দালালদের উৎপাত চরমে, অতিষ্ঠ মানুষ

শহর আ. লীগ নেতা ও বিশিষ্ট ঠিকাদার কালামের প্রতিবাদ

চট্টগ্রামে স্বামীকে গলাকেটে হত্যা করে পালিয়ে গেছে স্ত্রী

গ্যাস লাইন কেটে যাওয়ায় চরম দুর্ভোগে চট্টগ্রামের মানুষ