এম.এ আজিজ রাসেল

দেশী-বিদেশী বিভিন্ন এনজিও প্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় সভা করেছে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালিক। রোহিঙ্গাদের কলেরা টিকা খাওয়ানো কার্যক্রম উদ্বোধনসহ স্বাস্থ্য বিষয়ক নানা বিষয় নিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মোঃ আলী হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালিক বলেন, বাংলাদেশে নানা সমস্যা থাকা সত্বেও প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে চরম সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে। বর্তমানে তাদের যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা দেয়া হচ্ছে। ফেরত না যাওয়া পর্যন্ত এসব সুবিধা অব্যাহত থাকবে। রোহিঙ্গাদের নানা রোগ প্রতিরোধে মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে কলেরা টিকা খাওয়ানোর কার্যক্রম। দুই ধাপে ৯ লাখ রোহিঙ্গাকে কলেরা টিকা খাওয়ানো হবে। এরমধ্যে ১ম ধাপে খাওয়ানো হচ্ছে সাড়ে ৬ লাখ রোহিঙ্গাকে। ১ম ধাপ চলবে আগামি ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত। এটি পরিচালনার জন্য উখিয়া উপজেলায় ১৫০টি ও টেকনাফ উপজেলায় ৬০টি টিকা কেন্দ্র খোলা হয়েছে। প্রতি কেন্দ্রে প্রতিদিন গড়ে ৫০০ জন রোহিঙ্গাকে ভ্যাকসিন খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ, স্বাস্থ্য মন্ত্রাণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান, এমপি আশেক উল্লাহ রফিক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক ডা. এএম মজিবুলহক, কক্সবাজার সিভিল সার্জন ডা. আব্দুস সালাম, চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি, ইউনিসেফ প্রতিনিধি, আইওএম প্রতিনিধি, ব্র্যাক এর প্রতিনিধি, সূচনা ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি, ডব্লিউএইচও’র প্রতিনিধি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •