গুলিবিদ্ধ পুত্র নিয়ে ভিক্ষা করছে অন্ধ রোহিঙ্গা হাফেজ আবদুর রহমান

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ:

মিয়ানমার বাহিনীর গুলিতে আহত পুত্র নিয়ে ৮ সদস্যের পরিবারসহ অসহায় ও মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন রোহিঙ্গা অন্ধ হাফেজ আবদুর রহমান। বাংলাদেশে পালিয়ে আসার ট্রলার ভাড়া ও মিয়ানমার সেনাদের গুলিতে আহতদের বাংলাদেশে পাঠানো বাবত বিশাল অংকের দেনার দায়ে জর্জরিত ছাড়াও গুলিবিদ্ধ ছেলের চিকিৎসার খরচ যোগাতে ভিক্ষার ঝুলি মাথায় নিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে, রাস্তায় ও মসজিদের দরজায় ঘুরছেন অন্ধ এ হাফেজ আবদুর রহমান (৪৮)।

৯ অক্টোবর সোমবার সকালে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্প (স্থানীয় ভাষায় রোহিঙ্গা টাল) সংলগ্ন পুর্ব পাশে স্থানীয় জহির আহমদের মালিকানাধীন জমিতে নতুন অনুপ্রবেশকারী অন্যান্য রোহিঙ্গাদের সাথে মাসিক ৫০০ টাকায় ভাড়া নিয়ে থাকা ঝুপড়িতে দেখা হয় অন্ধ হাফেজ আবদুর রহমানের সাথে। তাঁর ২য় পুত্র মোঃ আলম (১৬) মিয়ানমার বাহিনীর গুলিতে আহত। ডান হাতে ও ডান পায়ে গুলি লেগেছে। বেপরোয়া নির্বিচারে করা ব্রাশ ফায়ারের গুলি। তাঁদের বাড়ি মিয়ানমারের মংডু মেরুল্লার ঝুমপাড়া গ্রামে। তাঁর বাবার নাম মৃত আবদুচ্ছালাম। নিজে অন্ধ হলেও সুন্দর সাজানো-গোছানো সুখের সংসার ছিল তাঁদের। সংসারে রয়েছেন স্ত্রী দিল বাহার বেগম (৩৭), পুত্র শফিক আলম (১৮), মিয়ানমার বাহিনীর গুলিতে আহত মোঃ আলম (১৬), কন্যা ফেরদৌস বেগম (১৪), পুত্র মোঃ রিদুয়ান (১২), মোঃ জোহার (১০), কন্যা হুরি জন্নাত (৮)।

অশ্রু সজল নয়নে অন্ধ হাফেজ আবদুর রহমান বলেন ‘সেপ্টেম্বর মাসের ২য় সপ্তাহে মিয়ানমার বাহিনী ও রাখাইন মিলে যেদিন আমাদের গ্রামে অভিযান শুরু করে, তখন পুরো গ্রাম জুড়ে ভয়াবহ অবস্থা। চারদিকে গুলির শব্দ। আগুনে বসতবাড়ি পোড়ানোর গন্ধ। মার মার, কাট কাট, লুটপাট আর অসহায় রোহিঙ্গাদের আতœচিৎকার, দিকবিদিক ছুটাছুটি। প্রাণ বাচাঁনোর তাকিদে আমরাও স্ত্রী, পুত্র-কন্যাসহ পালানোর সময় মিয়ানমার বাহিনীর বেপরোয়া নির্বিচারে করা ব্রাশ ফায়ারের গুলিতে আমার ২য় পুত্র মোঃ আলম (১৬), প্রতিবেশী পুতুইয়ার পুত্র শামসুল আলম (২৩), জমির হোছনের পুত্র আক্তার কামাল (২৫), আবুল হোছনের পুত্র জাহেদ হোছন (২০) এবং রাহমতুল্লাহ (২৩) নামে অপর এক যুবকসহ ৫ জন আহত হয়। কোন প্রকার মিয়ানমার সেনা-পুলিশ ও মগদের চোখ এড়িয়ে গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় আমরা পাহাড়ে আশ্রয় নিই। একদিকে গুলিবিদ্ধদের ক্ষত স্থান থেকে রক্তক্ষরণ, অন্যদিকে সেনা আতংক, সে এক ভয়ানক অবস্থা। প্রথমে গুলিবিদ্ধদের জরুরী চিকিৎসার জন্য ৫ লক্ষ কিয়াট ট্রলার ভাড়া কর্জ করে বাংলাদেশে পাঠানো হয়। এরপর ১২ সেপ্টেম্বর আমরা বাংলাদেশে আসি। ট্রলার মালিক ভাড়ার জন্য আমাদের টেকনাফের কাটাবনিয়া গ্রামে ২ দিন ধরে আটকে রাখে। আমাদের ট্রলারে ১৮ জন রোহিঙ্গা ছিল। পুর্ব পরিচিত ও আতœীয়দের কাছ থেকে কর্জ নিয়ে জনপ্রতি ৩ হাজার বাংলাদেশী টাকা ভাড়া পরিশোধ করে মুক্তি পাই। এরপর ৮ দিন নতুন পল্লানপাড়া একটি বাড়ির আশ্রয়ে থেকে নতুন অনুপ্রবেশকারী অন্যান্য রোহিঙ্গাদের সাথে এখানে চলে আসি’।

মিয়ানমার বাহিনীর গুলিতে আহত পুত্র মোঃ আলমের চিকিৎসা বিষয়ে বলেন ‘প্রথমে টেকনাফের সরকারী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার পর লেদা অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের সেবায় নিয়োজিত আর্ন্তজাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। কয়েকদিন সেখানে ভর্তি ছিল। এরপর থেকে বাসায় আছে। তার চিকিৎসার জন্যও প্রচুর টাকা খরচ হয়েছে ধার-কর্জ করে। ঔষধ কিনতে অনেক টাকা খরচ হচ্ছে। এখনও ক্ষত স্থান শুকায়নি। হাতে-পায়ে প্রচন্ড ব্যথা। ধাক্কা-ধাক্কি করে লাইনে দাঁড়িয়ে ত্রাণও সংগ্রহ করা যাচ্ছেনা। ট্রলার ভাড়ার দেনার টাকা, গুলিবিদ্ধ পুত্রের চিকিৎসার জন্য জরুরী ঔষধ কেনার টাকা, ঝুপড়ি বাসার মাসিক ভাড়ার টাকা এবং ৮ সদস্যের পরিবারের খরচের টাকা যোগাড় করতে নিরুপায় হয়ে ভিক্ষায় নামতে হয়েছে’।

তিনি আরও বলেন ‘আমি জন্মান্ধ নই। বালক অবস্থায় ১৩ বছর বয়সে অসুস্থতায় আমার উভয় চোখ নষ্ট হয়ে যায়। মিয়ানমারে মুসলমানদের উন্নত চিকিৎসার কোন সুযোগ নেই। ১৫ বছর বয়সে আমি হাইচ্ছুরাতা গ্রামে হাফেজ আবুল খায়েরের তত্বাবধানে হেফজ শুরু করি। শিক্ষক এবং সহপাঠিদের সহযোগিতায় আমি পুর্ণ পবিত্র কুরআন হেফজ সমাপ্ত করেছি। এখন আমি চরম অসহায়। কর্জ পরিশোধ করা দুরে থাক, গুলিবিদ্ধ ছেলে এবং জরুরী খরচ মেঠানো সম্ভব হচ্ছেনা। ঝুপড়ি বাসার মাসিক ৫০০ টাকা ভাড়া পরিশোধ করাও আমার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই আমি থাইংখালীতে চলে যাব। দানশীল যে কোন ব্যক্তি ও সংগঠনকে আমার ০১৮৩৫৪৪৫১৪৮ মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করতে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি’।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

১ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিকটন লবণ উদ্বৃত্ত, তবু আমদানির চক্রান্ত

ঈদগাঁও থেকে দোকানদার অপহরণঃ ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী!

‘হিংসাবিহীন মানুষ পাওয়া কঠিন’

যখন দশম শ্রেণির ছাত্রী এই সময়ের পিয়া

উখিয়ায় অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন এসিল্যান্ড একরামুল ছিদ্দিক

কক্সবাজার শহরে বেড়েই চলছে চুরি ছিনতাই

হোটেল সী-গালের সংবর্ধনায় সিক্ত মেয়র মুজিবুর রহমান

বর্জ্য অপসারণে আরো একটি গাড়ি সংযোজন করলেন মেয়র মুজিব

মদ পানের অভিযোগে প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রু বহিষ্কার

এই জনপদটি ইয়াবা নামক বিষ বৃক্ষের আবক্ষে নিম্মজ্জিত : সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন

যুগ্মসচিব হলেন কক্সবাজারের সন্তান শফিউল আজিম : অভিনন্দন

ধর্মীয় শিক্ষা মানুষের মাঝে মূলবোধের সৃষ্টি করে-এমপি কমল

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশের অভিযানে ১৪জন আসামী গ্রেফতার

কক্সবাজার জেলা পুলিশকে আইসিআরসির ২৫০ বডি ব্যাগ হস্তান্তর

চকরিয়ায় পল্লীবিদ্যুতের ভুতুড়ে জরিমানা নিয়ে আতঙ্ক!

ঈদগাঁওয়ে পাহাড় কাটার দায়ে এক নারীকে ১ বছর কারাদন্ড

শুধু চালককে অভিযুক্ত করে লাভ নেই আমাদেরও সচেতন হতে হবে-ইলিয়াছ কাঞ্চন

মাওলানা সিরাজুল্লাহর মৃত্যুতে জেলা জামায়াতের শোক

কক্সবাজারের ৩দিন ব্যাপী ‘প্রাথমিক চক্ষু পরিচর্যা’ কর্মশালার উদ্বোধন

‘ঘরের ছেলে’র বিদায়ে ব্যথিত পেকুয়াবাসী