খুটাখালীতে শিক্ষার্থীদের কোচিং করতে বাধ্য করছেন শিক্ষকরা

সেলিম উদ্দীন,ঈদগাঁও, কক্সবাজার :

কাঙিত সাফল্যের নিশ্চয়তার নামে পঞ্চম শ্রেণীর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি (পিএসসি) ও অষ্টম শ্রেণীর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীতে কোচিং ও মডেল টেস্ট বাণিজ্য এখন তুঙ্গে। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাসের পরিবর্তে শিক্ষার্থীদের মোটা অঙ্কের বিনিময়ে কোচিং ও মডেল টেস্ট বাণিজ্যে অংশ নিতে বাধ্য করা হচ্ছে। এমন রমরমা কোচিং ও মডেল টেস্ট বাণিজ্যে নীতিমালা যেন অসহায়।

২০১২ সালের ২০ জুন সরকারি-বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা প্রণয়ন করে সরকার। এরপর সবগুলো বিষয়ে অতিরিক্ত ক্লাস করলেও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এক হাজার দুইশ টাকার বেশি নেয়া যাবে না। এ বিষয়টি সংযোজন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংশোধন করে। নীতিমালা অনুযায়ী এক হাজার দুইশ টাকা দিয়েই শিক্ষার্থীরা সর্বোচ্চ আটটি বিষয়ে পড়তে পারবে। অতিরিক্ত ক্লাসের জন্য মহানগর এলাকায় প্রতি বিষয়ে ১২টি ক্লাসের জন্য ৩০০ টাকা, জেলা শহরে ২০০ টাকা ও উপজেলা পর্যায়ে ১৫০ টাকার বেশি নেয়া যাবে না বলে নীতিমালায় বলা হলেও একাধিক বিষয়ের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ কত টাকা নেয়া যাবে সে বিষয়ে কিছুই নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়নি। নীতিমালার এই ফাঁক-ফোঁকড়ে বিশেষ মহল কোচিং বাণিজ্য এখনো অব্যাহত রেখেছে।

জারি করা নীতিমালায় বলা হয়েছে, অভিভাবকদের আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রতিষ্ঠান প্রধান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত সময়ের আগে বা পরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই অতিরিক্ত ক্লাসের ব্যবস্থা করতে পারবেন। কোনো শিক্ষক নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে কোচিং করাতে পারবেন না। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের অনুমতি নিয়ে অন্য প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ ১০জন শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট পড়াতে পারবেন। এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান প্রধানকে ছাত্র-ছাত্রীর তালিকা, রোল, নাম ও শ্রেণী উল্লেখ করে জানাতে হবে। নীতিমালা প্রণয়নের সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়, কোচিংয়ের সাথে জড়িত শিক্ষকদের তালিকা করা হয়েছে। একশ জন ছাত্র পড়ান এমন শিক্ষকেরও খোঁজও মন্ত্রণালয়ে রয়েছে। কোচিং বাণিজ্য বন্ধের নীতিমালাটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছে পাঠানো হবে। প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছে নীতিমালাটি পাঠানো শেষ হলেই তদারকি কমিটি মাঠে নামবে। অথচ তদারকি কমিটি কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে এমন নজির কোথাও নেই। স্থানীয় অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সাথে আলাপ করে পাওয়া গেছে অন্য চিত্র।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসন্ন পঞ্চম শ্রেণীর প্রাথমিক সমাপনি ও অষ্টম শ্রেণীর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে খুটাখালীতে এখনো আগের মতো রমরমা কোচিং ও মডেল টেস্ট বাণিজ্য অব্যাহত রয়েছে। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের এ বাণিজ্যে অংশ নিতে বাধ্য করা হচ্ছে। কোন অভিভাবক দ্বিমত পোষন করলে তাদের সন্তানরা নানা পরিস্থিতির শিকার হয়। নীতিমালার তোয়াক্কা না করে নেয়া হচ্ছে খেয়াল খুশি মতো টাকা। কোন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাসিক হিসেবে, আবার কোন প্রতিষ্ঠানে এককালিন হিসেবে টাকা আদায় করছে। প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার কোচিং ও মডেল টেস্ট বাবদ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান প্রতিমাসে ১ হাজার টাকা আদায় করার তথ্যও পাওয়া গেছে। আর জেএসসি পরীক্ষার কোচিং ও মডেল টেস্ট বাবদ নেয়া হচ্ছে দেড় হাজার টাকা পর্যন্ত। ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় গড়ে ওঠা কোচিং সেন্টারগুলোতেও একই হারে টাকা নেয়া হচ্ছে। তবে কেউ নীতিমালার তোয়াক্কা করছে না। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক আছেন, যারা নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অথবা নিজের বাসা বাড়ি অথবা অন্যত্র ভাড়া করা ভবনে এ ধরনের বাণিজ্য পরিচালনা করছেন। বাহারি নামের নানা কোচিং সেন্টারগুলোর পাশাপাশি অনেক কোচিং সেন্টার পরিচালিত হচ্ছে নাম ছাড়া। কোচিং বাণিজ্যকে আড়াল রাখার জন্য কোচিং সেন্টারের পরিবর্তে বিভিন্ন কৌশলী শব্দ জুড়ে দেয়া হচ্ছে। কিছু কিছু কোচিং সেন্টার কাঙ্খিত সাফল্যের শতভাগ নিশ্চয়তার নামে মানুষকে প্রতারিত করছে। এলাকায় সাঁটানো হয়েছে পোস্টার ও ব্যানার।

অভিভাবকদের অভিযোগ, মনে হয় কোচিং বাণিজ্যে নীতিমালার কাছে অসহায়। নীতিমালায় উল্লেখ থাকলেও বাস্তবে কোন তদারক দল মাঠে নেই। বাধ্য হয়ে তারা সন্তানদের কোচিংয়ে দিচ্ছে। কোচিং না করার নানা কুফলের ব্যাখ্যা দিয়ে অভিভাবকদের মানসিক ভাবে দূর্বল করা হচ্ছে। তাছাড়া কোচিং করতে ইচ্ছে পোষণ না করলে শিক্ষার্থীদের নানা পরিস্থিতির শিকার হতে হয়। তাদের প্রশ্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত ক্লাস থাকার পর আবার কোচিং কি জন্য? ক্লাসের সময় কোচিং করার নামে অতিরিক্ত ফি নেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি প্রতিমাসে টিউশন ফি’র ক্ষেত্রে কোন প্রকার ছাড় দেয়া হচ্ছে না।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জানান, এ ব্যাপারে আমরা অনেকের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়েছি। থানা শিক্ষা-কর্মকর্তাকে বিষয়টি তদন্ত করে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

ঈদের পর সরকারকে ১০ নম্বর হুঁশিয়ারি!

এবার খুরুশ্কুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের সড়কের জমিতে ভবন নির্মাণ

মাতামুহুরী ব্রীজে ফের দেবে গেছে,  দূর্ঘটনার আশঙ্কা

চকরিয়ায় মাংসের মূল্য নির্ধারণ করলেন প্রশাসন

ভালুকিয়া যুব কল্যাণ সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাশেমের অকাল মৃত্যু

সব ধর্মের অনুসারীদের নিজ ধর্ম পালনের সমান সুযোগ নিশ্চিত করেছে সরকার-ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শহরের বায়তুশ শরফ এলাকা থেকে ৪ দিন ধরে কন্যা শিশু নিখোঁজ

খরুলিয়ায় প্রবাসীর জমি দখলের অভিযোগ, থানায় মামলা

সীতাকুণ্ডে কক্সবাজারের ‘ইয়াবাপ্রেমী’ দুই প্রেমিক যুগল আটক,২০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

‘ধারালো দা’সহ আটক হামলাকারীর বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি পুলিশ’

স্বপ্নজালের জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে মানববন্ধন

লামায় প্রান্তিক কৃষকের তামাক লুটের অভিযোগ, মারধরে আহত ৭

ঈদগাঁও বাজারে শবে বরাত ও রোজাকে পুঁজি করে ব্যবসায়ীদের ফায়দা লুটার চেষ্টা!

২৭ বছরের প্রেমিকের টানে বাংলাদেশে ৫২ বছরের মার্কিন নারী

প্রশ্নপত্রে পর্নোতারকার নাম দেয়া সেই শিক্ষক বরখাস্ত

ড. আল্লামা জসিম উদ্দীন নদভী বিদগ্ধ ইসলামী শিক্ষাবিদ ও উদার মনের মানুষ ছিলেন

খালেদার মুক্তির দাবিতে বিএনপি হঠাৎ সক্রিয় কেন?

পেকুয়ায় চিংড়িঘেরের বাঁধ কেটে মাছ লুট

ইউপিডিএফ’র হয়ে চাঁদা আদায়কালে ৬লক্ষাধিক টাকাসহ কাঠ ব্যবসায়ি আটক