সাগর থেকে সাংবাদিকের কাটা মাথা উদ্ধার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
ডেনমার্কের এক আবিষ্কারকের নিজের তৈরি সাবমেরিনে বেড়াতে যাবার পর নিখোঁজ হওয়া এক সুইডিশ সাংবাদিকের কাটা মাথা উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর আগেই তার দেহের বিভিন্ন অংশ উদ্ধার করা হয়।

কোপেনহাগেনের দক্ষিণে কোগ উপসাগর থেকে ডুবুরিরা সাংবাদিক কিম ওয়ালের মাথা, পা এবং কাপড়চোপড় উদ্ধার করেন। পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, এর কাছেই গত ২১ আগস্ট ওয়ালের দেহ পাওয়া যায়। পুলিশ বলছে, কাটা মাথাটি কিম ওয়ালেরই।

সৌখিন আবিষ্কারক পিটার ম্যাডসেনের সাবমেরিনে বেড়াতে গিয়েছিলেন সাংবাদিক কিম ওয়াল। তিনি সাবমেরিন নিয়ে একটি রিপোর্ট লিখতে চেয়েছিলেন। সেখানে যাওয়ার পর তার আর কোনো হদীস পাওয়া যায়নি।

ম্যাডসেনের বিরুদ্ধে কিম ওয়ালকে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে তিনি তা অস্বীকার করছেন। তিনি জানিয়েছেন সাবমেরিনের গোল দরজায় মাথায় ধাক্কা খেয়ে ওয়াল মারা গিয়েছিলেন। কিন্তু কাটা মাথাটিতে কোন আঘাতের চিহ্ন পান নি তদন্তকারীরা।

সাবমেরিনে বেড়াতে যাবার পর থেকে কিম ওয়ালের কোন খোঁজ না পাওয়ায় তার বন্ধু পুলিশে খবর দেন। পিটার ম্যাডসেন তাকে খুন করেছেন এবং তার মৃতদেহ টুকরো টুকরো করছেন বলে অভিযোগ করা হয়।

ম্যাডসেন একজন সৌখিন প্রকৌশলী। সাবমেরিন এবং মহাশূন্যগামী রকেট নির্মাতা তিনি। তার একটি নিজস্ব ল্যাবরেটরিও আছে।

ম্যাডসেন নিজেই ইউসি-থ্রি ধরণের একটি নটিলাস সাবমেরিন বানিয়েছেন। সেটাতেই কিম ওয়াল বেড়াতে গিয়েছিলেন। গত শুক্রবার ডেনমার্কের উপকুলে সেটি ডুবে যায়।

পুলিশ কর্মকর্তা মোলার জেনসেন বলেন, আমরা যে ব্যাগগুলো পেয়েছি তার একটিতে কিম ওয়ালের কাপড়চোপড়, মোজা এবং জুতো ছিল। তাছাড়া একটি ছুরিও ছিল। ব্যাগগুলোতে গাড়ির পাইপ ভরে তা ভারি করা হয়েছিল যেন এগুলো ভেসে না ওঠে।

সাবমেরিনটির আবিষ্কারক ম্যাডসেন কিম নিখোঁজ হবার পর প্রথম বলেছিলেন. তিনি তাকে নিরাপদে কোপেনহাগেনে নামিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে তিনি আবার তার গল্প পরিবর্তন করে বলেন, সেখানে একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনা হয়েছিল এবং তিনি কিম ওয়ালকে সাগরে কবর দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, এর পর তিনি তার সাবমেরিনটি ডুবিয়ে দিয়ে নিজে আত্মহত্যা করার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিম ওয়ালের দেহ পাবার পর তার ময়নাতদন্ত করে দেখা গেছে তার যৌনাঙ্গ এবং পাঁজরে ছুরির আঘাত রয়েছে। এটা হয়তো মৃত্যুর সময় বা তারপরই হয়েছিল। অথচ তার মাথায় কোনও ভোঁতা অস্ত্র বা যন্ত্রের আঘাতের চিহ্ন মেলেনি।

তদন্তকারীদের একাংশের ধারণা, কিমকে মারার পরে বিকৃতকাম পিটার তার দেহ টুকরো করে সেগুলো পানিতে ভাসিয়ে দেন। সরকারি কৌঁসুলি ডেনমার্কের আদালতে জানিয়েছেন, পিটারের ওয়ার্কশপ থেকে কিছু পেন ড্রাইভ মিলেছে যেখানে নারীদের যৌন অত্যাচারের পরে তাদের দেহ টুকরো করে কেটে ফেলার দৃশ্য রয়েছে।

পিটার অবশ্য এসব অভিযোগই অস্বীকার করেছেন। পেন ড্রাইভগুলিও তার নয় বলে আদালতকে জানিয়েছেন তিনি।

সর্বশেষ সংবাদ

সমাজসেবায় মাদার তেরেসা স্বর্ণ পদক পেলেন কামরুল হাসান

পরিচালকের যৌনতার অভিযোগে প্রিন্সিপ্যালের পদত্যাগ

ফেঁসে গেলো খরুলিয়ার ভূমিদস্যু শফিক, ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বসতভিটা রক্ষার চেষ্টাই কাল হলো তাদের

বর্তমান শাসনামলে খেলাপি ঋণ সবচেয়ে বেশি বেড়েছে: মেনন

সকল মানুষের কাছে চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবেন কবি আল মাহমুদ

নুসরাত হত্যাকারিদের দ্রুত শাস্তি দাবী পূজা উদযাপন পরিষদের

খরুলিয়ার জমি সংক্রান্ত বিরোধের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এমপি কমল

চকরিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় এনজিও কর্মী নিহত

পেকুয়ায় কাছারীমোড়া সাহিত্যকেন্দ্রের উদ্বোধন

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ হিসেবে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে -ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শৃংখলা মেনে চললে যানজটের ও দুর্ঘটনাও কমে আসবে – ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার

শ্রীলঙ্কা হামলায় আইএসের বুনো উল্লাস

শ্রীলঙ্কায় হামলার পেছনে ‘ন্যাশনাল তৌহিদ জামাত’

চট্টগ্রামে আসামি ধরতে গিয়ে গোলাগুলিতে আহত ৬ পুলিশ

মক্কা থেকে হারিয়ে গেল কক্সবাজারের সাদ

আল্লাহর কসম খেয়ে বলছি মাদকের সাথে আমি জড়িত নই- দিদার বলী

জিন তাড়ানোর বাহানায় যৌন সম্পর্ক গড়তো সেই পিয়ার

নুসরাত হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত রুহুল আমিনের উত্থানের নেপথ্যে

বেনাপোল বন্দরের নির্মান কাজের চুরি যাওয়া রড উদ্ধার