৯ লাখ রোহিঙ্গাকে খাওয়ানো হবে কলেরা টিকা

ইমাম খাইর, সিবিএন:
মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর নিপীড়নের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা ৯ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে কলেরা রোগের ভ্যাকসিন (টিকা) খাওয়ানো হবে। টেকনাফ ও উখিয়ার ১ বছর থেকে সব বয়সী রোহিঙ্গা কলেরা টিকা পাবে। ১০ অক্টোবর থেকে এ কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। নতুনদের সাথে পুরনো রোহিঙ্গারাও পাবে এ টিকা।
তবে ১৫ বছর ও তার নিচের শিশু-কিশোরদের প্রত্যেককে দুই ডোজ এবং ১৫ ঊর্ধ্ব বয়সীদের এক ডোজ করে কলেরা প্রতিষেধক টিকা খাওয়ানো হবে। এ হিসেবে ৯ লাখ ওরাল কলেরা ভ্যাকসিন (টিকা) প্রস্তুত রাখা হয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে।
মিয়ানমারে নির্যাতনের শিকার হয়ে প্রাণভয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ওরাল কলেরা ভ্যাকসিন (টিকা) খাওয়ানো কার্যক্রমে দেশী-বিদেশী সাহায্য সংস্থাগুলো সহযোগিতা করবে।
প্রাথমিকভাবে উখিয়া-টেকনাফের ৪ লাখ পরবর্তীতে আরো ৫ লাখ রোহিঙ্গা নারী পুরুষ এ কর্মসুচির আওতায় আসবে। পাশাপাশি স্বাস্থ্য ঝুঁকিমুক্ত রাখতে উখিয়া-টেকনাফের ৪ লাখ বাংলাদেশীকে কলেরা রোগের টিকা খাওয়ানো হবে জানিয়েছেন কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুস সালাম।
তিনি সিবিএনকে বলেন, আগামী ১০ অক্টোবর থেকে প্রাথমিকভাবে ৪ লাখ রোহিঙ্গাকে টিকা খাওয়ানো হবে। পর্যায়ক্রমে আরো ৫ লাখ রোহিঙ্গা এ টিকার আওতায় আসবে। এছাড়া উখিয়া-টেকনাফকে স্বাস্থ্য ঝুঁকিমুক্ত রাখতে ৪ লাখ বাংলাদেশীকেও কলেরা টিকা খাওয়ানো হবে।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ থেকে যেসব ঝুঁকিপূর্ণ রোগ আমরা ইতোমধ্যে বিদায় দিতে সক্ষম হয়েছি, তার অনেকই আবার ফিরে আসছে মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের মাধ্যমে। এটি বড় শঙ্কার বিষয়। তবে ঝুঁকিপূর্ণ রোগগুলো এখনো নিয়ন্ত্রণের বাইরে যায়নি। ইতোমধ্যে অনেক রোহিঙ্গা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে অনেকে। তাই আমরা কলেরার ভ্যাকসিন দেয়া শুরু করব শিগগিরই।
জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পকেন্দ্রিক সরকারী ২০টি এবং বেসরকারী ২৫টি মেডিকেল ক্যাম্প কাজ করছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও মোবাইল টীমসহ সরকারীভাবে ৪০ জন ডাক্তার রোহিঙ্গাদের চিকিৎসাসেবা দিচ্ছে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৬৪ হাজার ৩১৭ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ চিকিৎসা পেয়েছে।
এদিকে শিশুদের মাঝে নানা সংক্রামক রোগ সৃষ্টি হতে পারে এমন আশংকায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে টিকাদান কর্মসূচি শুরু করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। গত ১৬ সেপ্টেম্বর হাম-রুবেলা টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধন করা হয়।
ইতোমধ্যেই রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের হাম-রুবেলা, পোলিও এবং ভিটামিন-এ টিকা খাওয়ানো হয়েছে। উখিয়া, টেকনাফ ও বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত ক্যাম্পে থাকা সব রোহিঙ্গা এই টিকা কার্যক্রমের আওতায় থাকবে।
উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবারপরিকল্পনা কর্মকর্তা ও রোগ প্রতিষেধক টিকা কার্যক্রমের সমন্বয়কারী ডা: মিসবাহ উদ্দিন আহমেদ সিবিএনকে এসব তথ্য জানান।
তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা প্রাণভয়ে বাংলাদেশে আসছে ঠিকই কিন্তু সেই সাথে তারা নিয়ে আসছে মারাত্মক সব সংক্রামক রোগ। ইতোমধ্যে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েছে বিভিন্ন ক্যাম্পে। অনেকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অপুষ্টিজনিত কারণে রোহিঙ্গারা সহজেই এসব রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এ জন্যই সরকারিভাবে রোহিঙ্গাদের কলেরা টিকা খাওয়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
ডা: মিসবাহ উদ্দিন আগামী ১০ অক্টোবর থেকে এ কার্যক্রম শুরু করা হবে এমন আশা প্রকাশ করে বলেন, এ পর্যন্ত প্রায় দেড় লাখ রোহিঙ্গা শিশুকে দুই লাখ ৮০ হাজার ডোজ হাম-রুবেলা, পোলিও এবং ভিটামিন-এ প্রতিষেধক টিকা দেয়া হয়েছে। গত ৩ অক্টোবর থেকে ওই তিন ধরনের টিকা কার্যক্রম আপাতত বন্ধ রয়েছে। এখন শুরু হচ্ছে কলেরার টিকা কার্যক্রম। এ কার্যক্রমে ১৫ বছর পর্যন্ত শিশুরা দুই ডোজ এবং এর বেশি বয়সীরা একটি করে ডোজ পাবে।
জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের তথ্য বলছে, গত ২৫ আগস্টের পর পালিয়ে আসা প্রায় ৫ লাখ উদ্বাস্তুর মধ্যে অর্ধেকেরই বেশি শিশু। খাদ্য, আশ্রয়, বিশুদ্ধ পানি ও স্যানিটেশনের মত প্রয়োজনীয় সুবিধাগুলো থেকে এরা বঞ্চিত। রাখাইনে নিজ এলাকায় ভীতিকর অভিজ্ঞতার নিয়ে আসা এই শিশুদের অনেকেই দিনের পর দিন দুর্গম পথে হেঁটে দুর্বল হয়ে পড়েছে। অনেক শিশু পুষ্টিহীনতার শিকার।
ডায়রিয়া, সর্দি-জ্বর ও চর্মরোগের সমস্যা নিয়ে প্রচুর রোহিঙ্গা হাসপাতালে যাচ্ছে। রোগীদের মধ্যে বড় একটি অংশ শিশু বয়সী। টেকনাফ ও উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় স্বাস্থ্য সেবা সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন রোহিঙ্গা রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বেড়েই চলেছে।
জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা ও দেশি-বিদেশি এনজিওর সহায়তায় সরকারি হাসপাতালের ডাক্তার ও নার্সরা এই সেবা দিচ্ছেন। পুরো কার্যক্রমের তত্ত্বাবধান করছেন সিভিল সার্জন।

 

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

নির্যাতিত হয়ে সৌদি আরব থেকে ফেরত আসলেন ২৪ নারী কর্মী

মিয়ানমারের মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্ত করবে জাতিসংঘ

চট্টগ্রামের প্রয়াত চারনেতার বিশেষত্ব ছিল এরা দুঃসময়ে সাহসী : নাছির

বদরখালীতে কিশোরের জুতার ভেতর থেকে ইয়াবা উদ্ধার

জাতীয়করণ হলো টেকনাফ এজাহার বালিকা উচ্চবিদ্যালয়

৪ বছরের শিশু নিহানকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

অপরাধ দমনে চট্টগ্রামে আইপি ক্যামেরা বসাচ্ছে সিএমপি পুলিশ 

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত হয়নি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়

রামুতে ৩৮ হাজার ইয়াবার ট্রাক সহ আটক ২

খুরুস্কুল বাসীকে কাঁদিয়ে চির বিদায় নিল মেধাবী ছাত্র মিশুক

টেকনাফে অভিযানেও থামছে না ৩ ভাইয়ের ইয়াবা বানিজ্য

পেকুয়ায় চাঁদার দাবীতে দোকান সংস্কারে বাধা ও ভাংচুর

গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের সহযোগিতা চেয়েছেন মেয়র মুজিবুর রহমান

চকরিয়ায় সুরাজপুর আলোকশিখা পাঠাগার’র চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা পুরস্কার বিতরণ ও গুণীশিক্ষক সংবর্ধনা

কক্সবাজার ক্রীড়া লেখক সমিতির কমিটি গঠিত

সাংবাদিক বশিরের মাতার জানাযা সম্পন্ন বিভিন্নমহলের শোক

বিজিবি ক্যাম্প এলাকায় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন

টেকনাফ সাংবাদিক ফোরাম’র আহবায়ক কমিটি গঠিত

কক্সবাজার-৩ আসনে বিএনপির মনোনয়নপত্র জমা দিলেন অধ্যাপক আজিজ

“দুখরে রোগে ও ভয় পায়!”