রামুতে বিজিবি’র সচেতনতামূলক সভা

Ramu-BGB-News-Pic-1-29.11.2016.jpg

সোয়েব সাঈদ, রামু:
কক্সবাজারের রামুতে ৫০ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের (বিজিবি) গণসচেতনতামূলক মনবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সকালে ১০টায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর রামু শহর ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত ‘মাদক-অস্ত্র, পণ্য চোরাচালান ও অবৈধভাবে সীমান্তে বিচরণ-অতিক্রম প্রতিরোধ’ ও ‘সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের উত্থান এবং নাশকতামূলক কর্মকান্ড প্রতিরোধ’ বিষয়ক এ সভায় সভাপতিত্ব করেন, ৫০ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল গোলাম মনজুর সিদ্দিকী।

‘জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও, সন্ত্রাস নয় শান্তি’ এ অঙ্গীকারে বিজিবি’র গণসচেতনতামূলক এ মনবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. নিকারুজ্জামান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. আলী হোসেন, রামু থানা অফিসার ইনচার্জ প্রভাষ চন্দ্র ধর, রাজারকুল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মুফিজুর রহমান, জোয়ারিয়ানালা এমদাদুল উলুম মাদ্রাসার মোহাদ্দিস হাফেজ মাওলানা আবদুল হক, রামু উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক, রামু কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা শামশুল হক, রামু বায়তুন নূর জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা হেফাজেতুর রহমান, উত্তর মিঠাছড়ি প্রজ্ঞানন্দ বনবিহারের অধ্যক্ষ সারমিত্র মহাথের, রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তরুন বড়–য়া, রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিম, রামু প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি নুরুল ইসলাম সেলিম, রামু প্রেসক্লাব সূচনা কমিটির সভাপতি আমীর হোসাইন হেলালী, ধেচুয়াপালং শ্রদ্ধাংকুর বৌদ্ধ বিহারের মৃদুল বড়–য়া প্রমুখ।

সভায় ৫০ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল গোলাম মনজুর সিদ্দিকী বলেন, ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর রামুতে সাম্প্রদায়িক বিশৃংখলার পরিপ্রেক্ষিতে বিজিবি রামুস্থ রাখাইন সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করে। এরপর থেকে রামু উপজেলার বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মন্দির ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রক্ষা সহ, মাদক ও চোরাচালান প্রতিরোধ, এলাকার আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায়রাখা এবং বিভিন্ন সম্প্রদায় সহ তাদের ঘরবাড়ির নিরাপত্তায় টহল ও আভিযানিক কার্যক্রম কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। বিজিবি রামু’র অধিনায়ক বলেন, সাম্প্রকিককালে বিপদগামী ও ভ্রান্ত জঙ্গি মতাদর্শে বিশ্বাসী কিছু ব্যক্তি, সংগঠন বিরাজমান সাম্প্রদায়িক ও ধর্ম নিরপেক্ষ আবহ বিনষ্ট করছে। তাদের সংঘটিত নিরীহ মানুষের হত্যাকান্ড, নাশকতামূলক কর্মকান্ডসহ অমুসলিম-মুসলিম ব্যক্তিদের উদ্দেশ্যমূলকভাবে হত্যা করছে। এটি উদ্বেগজনক বিষয়।

Top