মাতারবাড়ীতে চলছে বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ : বন্ধ ২০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান

matarbari-biddut.jpg

ছালাম কাকলী :

মাতারবাড়ীতে চলছে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্পে বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের কাজ। বন্ধ হয়ে গেছে লবণ চাষ। বন্ধ হয়ে গেছে লবণ চাষীদের পদচারণা। বন্ধ হয়ে গেছে মাতারবাড়ীর প্রায় ২০ হাজার লোকজনের কর্মসংস্থানের আয়ের পথ। কিন্তু এ অবকাঠামো নির্মাণ কাজে স্থানীয়দের নিযোগ না দেয়ায় মাতারবাড়ীবাসী এখন ক্ষুদ্ধ। ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে মাতারবাড়ী ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ।

মাতারবাড়ী ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি হাজ্বী মানিক জানান, মাতারবাড়ীতে কয়লাভিত্তিক ২টি তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প করার জন্য দু’দফায় ২৬শত ১৪ একর লবণ ও চিংড়ী জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এতে অন্ত:ত পক্ষে ৫হাজার লবণ চাষী, লবণ পরিবহণের জন্য ৭হাজর শ্রমিক , ৫শতের অধিক দাদন ব্যবসায়ী , লবণ পরিবহণের জন্য স্থানীয় শতাধিক কার্গো ট্রলার , আবার এসব ট্রলারে ২হাজার মাঝিমাল্লা জড়িত ছিল। লবণ মৌসুমের পর বর্ষা মৌসুমেও চিংড়ী খাতে ৫হাজার চিংড়ী ব্যবসায়ী , পরিবহণ ও শ্রমিক হিসেবে নিয়োজিত ছিল। এখন উক্ত জায়গা লবণ ও চিংড়ী শিল্প থেকে হাত ছাড়া হয়ে যাওয়ায় অন্ত:তপক্ষে ২০ হাজার লোকের সব ধরণের কর্মসংস্থানের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। কিন্তু মাতারবাড়ী শ্রমিকদের সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ আশ্বস্থ করেছিল কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পে স্থল বেধে স্থানীয়দের নিয়োগ দেয়া হবে। এখন প্রথমটিতে বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের কাজ চলছে। ফ্যান্টাশনের নিয়োজিত কর্মকর্তা , বরিশালের বাসিন্দা আশিক স্থানীয়দের নিয়োগ না দিয়ে বহিরাগতদের নিয়োগ দিচ্ছে ক্রমান¦য়ে । এছাড়া বদরখালী তৈয়বের মালিকানাধীন উপকূলীয় এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে পাথর আনার দায়িত্ব দিয়েছে। উক্ত পাথর আনার কাজে ব্যবহার হচ্ছে বদরখালী সিন্ডিকেটের কার্গো ট্রলার , পাথর লোডও আনলোড এর কাজে নিয়োজিত শ্রমিক ও বদরখালী বাসিন্দা । যার ফলে মাতারবাড়ীবাসী কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিভিন্ন কাজ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দিন দিন। এতে মাতারবাড়ীতে শ্রমিকরা কাজ না পেয়ে কাজের সন্ধ্যানের জন্য এলাকা ছাড়ছে দলে দলে। টুঙ্গীপাড়া নামে খ্যাত মাতারবাড়ীবাসী উক্ত প্রকল্পের কাজ না পাওয়ায় মাতারবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমিকলীগ সহ অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের কাছে স্থানীয়রা বারবার অভিযোগ করে আসছে। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে দলীয় লোকজন মাতারবাড়ী থেকে শ্রমিক নিয়োগ দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে বার বার আবেদন- নিবেদন করে আসছে। কিন্তু ফ্যান্টাশনের দায়িত্বরত কর্মকর্তা আশিক এসব আবেদন প্রত্যাখ্যান করে বহিরাগতদের নিয়োগ দিয়ে আসছে। এতে মাতারবাড়ীবাসী দিন দিন উক্ত আশিকের বিরুদ্ধে দিন দিন ফুঁসে উঠছে। মাতারবাড়ী ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের হাজ্বী মানিক জানান, ফ্যান্টাশনের কর্মকর্তা আশিকের এ অন্যায় ও স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধ করে স্থানীয়দের নিয়োগ দেয়ার জন্য কোল্ড পাওয়ার কোম্পানীর কাছে দাবী জানিয়েছেন।

Top