মহেশখালী উপজেলা আ’লীগে স্থান পেতে মরিয়া অর্ধশত হাইব্রিড নেতা

alig-awamileague.jpg

বিশেষ প্রতিবেদক ককসবাজারঃ

খুব শীঘ্রেই ঘোষনা হতে যাচ্ছে মহেশখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের পুর্নাঙ্গ কমিটি। অন্যদিকে খুব শীঘ্রই কমিটি ঘোষনা হবে  এমন খবরে তৎপর মহেশখালীর বিভিন্ন ইউনিয়নের অর্ধশত হাইব্রিড আওয়ামী লীগ। যাদের অনেকের রাজনীতি ছিলো সুযোগসন্ধানী। এমনকি দীর্ঘদিন জামাত বিএনপির যত্রছায়ায় সরকার বিরোধী আন্দোলনসহ মহেশখালীর পরিবেশ ঘোলা করেছিলো এমন লোক ও কমিটিতে পদ পেতে মরিয়া বলে অভিযোগ করেন দলের অনেকে।

মাঠ পর্যায়ের অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়,উপজেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে স্থান পেতে নানাভাবে তদবীর চালাচ্ছে বিভিন্ন অপরাধে জড়িত অভিযুক্তরা। খুনের আসামী, মাদক ব্যবসায়ী, মানবপাচারের মতো অপরাধীরা আজ দলীয় পথ পেতে মরিয়া হচ্ছে। প্রকাশ্যে আওয়ামীলীগ নেতাদের যারা বিভিন্ন সময় নাজেহাল করেছিলো তাদের অনেকে  কমিটির পদ পেতে তদবির করছে এমন খবরে খোদ সাধারণ কর্মী সমর্থকদের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।

তথ্যসুত্রে জানাগেছে, কুতুবজোম ইউনিয়নের এমন লোক ও আছে সম্ভাব্য তালিকায়  যারা বিএনপি জামাতের সাথে সরাসরি জড়িত থেকে গোপন বৈঠক করেছে বিএনপির সাথে। যাদের ছেলে মেয়ে জামাতের ছাত্র সংগঠন শিবিরের পদে। এমনকি বিভিন্ন সময়ে আইনশৃঙাখলা বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হবার মতো রেকর্ড ও রয়েছে। যা বিভিন্ন সময় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে এবং স্থানীয় জনগনের মুখে মুখে রচিত ছিলো। অথচ তারা ও আসন্ন  উপজেলা আঃলীগের  পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ পেতে যাচ্ছেন বলে সাধারণ কর্মীদের মাঝে বিরুপ প্রভাব লক্ষ্যনীয়।

আওয়ামী লীগ ও সরকারের ভাবমূর্তি নষ্টকারীদের এমনকি যারা  জামাত বিএনপির সাথে লেয়াজো করে সরকার বিরোধী কাজে সহায়তা করেছে, তাদের আওয়ামীলীগের কোন কমিটির পদে না আনার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা রয়েছে বলে কেন্দ্রসুত্রে জানা যায় । সংশ্লিষ্ট সুত্রে আরো জানা যায়, বিতর্কিত লোকেরা কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে পদায়িত হতে সুপারিশকৃত তালিকা জেলা আওয়ামীলীগের  কাছে পাঠিয়েছিলো অনেক দিন হচ্ছে। যদিও  এসব জামাত বিএনপি পরিবারের নেতাকর্মী  বা বিতর্কিতদের উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটির পদে বসালে বিতর্কিত হতে পারে বলে এমন ধারণা করছে স্বয়ং দলের নেতা কর্মীরা।

কমিটি  বাছাইয়ে যোগ্যতা আর পরিচ্ছন্ন ও ত্যাগী কর্মীদের পদ দিয়ে মহেশখালীর উপজেলা আঃলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করবে বলে এমনটি আশা করেন মাঠ পর্যায়ের তৃণমুল নেতারা।

 

দীর্ঘদিন বড়মহেশখালী  ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের  দায়িত্বে থাকা প্রবীণ রাজনীতিবিদ মোঃ কামাল আহমদ জানান, অতীতে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে এমন ব্যক্তিদের কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে না বসিয়ে তারুন্য নির্ভর সমালোচনাহীন একটি কমিটি উপহার পেতে চান তিনি।

এমনকি মহেশখালী উপজেলার মাঠ পর্যায়ে থাকা  শতাধিক তরুণ আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের একাংশ মনে করেন,আসন্ন উপজেলা কমিটিতে সাংগঠনিক পর্যায়ের  গুরুত্বপূর্ণ পদে আসতে পারেন কুতুবজোম ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রনেতা,বর্তমান সময়ের পরিচ্ছন্ন মেধাবী  রাজনীতিবিদ আব্দুল মন্নান। এ ছাড়া কুতুবজোম ইউনিয়নে আরো কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে, ইউনিয়নের  বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোশাররফ হোসেন খোকন ও সাবেক ইউনিয়ন আঃলীগের সভাপতি মরহুম নাগু মেম্বারের জামাতা ইউপি সদস্য নুরুল আমিন খোকার নাম শোনা যাচ্ছে উপজেলাতে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুতুবজোম ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাবিবুল্লাহ জানান, রাজনীতির মাঠ এখন হাইব্রিডের দখলে, শালিক পাখি এখন ডানা লাগিয়ে ময়না হতে শুরু করেছে দলে,যার কারনে কমিটি সৃষ্টি হচ্ছে,নতুন লীগ হচ্ছে কিন্তু  কর্মী সৃষ্টি হচ্ছেনা বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরোওয়ার কাবেরী জানান, দলীয় নেতাকর্মীদের আশস্ত করতে  চাই। কোন অপরাধীর ঠাই আওয়ামীলীগে হবে না। সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী, মানবপাচার আসামীর  জন্য কোন তদবীর গ্রহন হবে না। সকল বিষয়ে খোজ খবর নিয়ে মহেশখালী উপজেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

আসন্ন মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের পুর্নাঙ্গ কমিটি বিষয়ে জানতে চাইলে ককসবাজার  জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা  জানান, মহেশখালী উপজেলার পুর্নাঙ্গ  কমিটির বিষয়ে সুপারিশকৃত নেতাকর্মীদের তালিকা হাতে পেয়েছেন অনেকদিন আগে।  তবে এখনো এপ্রোভ করেন নি জেলা কমিটি। তবে অতি শীঘ্রই সমস্ত রাজনীতির চিত্র যাচাই বাচাই করে পুর্নাঙ্গ  কমিটি ঘোষনা করবেন। কত সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষিত হবে জানতে চাইলে জেলা সভাপতি জানান, ৮১ সদস্য বিশিষ্ট তবে নতুন করে ৬৯ জনের তালিকা নির্বাচিত করবে বলে জানান তিনি।

আসন্ন কমিটি তারুণ্য নির্ভর এক কার্যকরী কমিটি হবে আশা প্রকাশ করেন জেলার দলীয় নেতারা। কেননা এখন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের টার্গেট ২০১৯ সালের নির্বাচন জয়লাভ করা আর দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে  সরকার।

আরো উল্লেখ্য থাকে যে,গত ২০ শে জানুয়ারী  মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের বহু প্রত্যাশিত সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলারদের স্বতর্ফুত উপস্থিতিতে সফল ভাবে সম্পন্ন হয়েছে উক্ত সম্মেলন। ২০৪ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ১৮৫ জন কাউন্সিলর এর উপস্থিতিতে কাউন্সিল অধিবেশন সম্পন্ন হয়। এতে সভাপতি নির্বাচিত হন আনোয়ার পাশা চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলো আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিক এমপি।

Top