বিশ্ববাজারে কক্সবাজারকে তুলে ধরতে আন্তর্জাতিক পর্যটন সম্মেলন

Coxsbazar-sea-beach-CBN.jpg

সিবিএন
বাংলাদেশের পর্যটন শহর কক্সবাজারের আজ বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে একটি আন্তর্জাতিক পর্যটন সম্মেলন। ২০ টি দেশের প্রতিনিধিরা এই সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন। প্যাসিফিক এশিয়া টুরিজম অ্যাসোসিয়েশন বাপা এবং বাংলাদেশের পর্যটন বোর্ড যৌথভাবে এই সম্মেলনের আয়োজন করেছে। এই সম্মেলনে লক্ষ্য ইকোটুরিজম অর্থাৎ পরিবেশবান্ধব পর্যটন সেবার উন্নয়ন এবং এই থেকে কিভাবে স্থানীয় মানুষ উপকৃত হতে পারে তার উপায় খুঁজে বের করা।
বাংলাদেশে কাছাকাছি সময়ে গুলশান হামলান পর বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পে একটা বড় ধাক্কা খেয়েছে বলে বলা হয়ে থাকে, তার পরেও এরকমের একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন আপনারা আয়োজন করতে যাচ্ছেন। এখন এই মুহুর্তে পর্যটনের মানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান আসলে কোথায়?
বিবিসি বাংলার এমন প্রশ্নের জবাবে পাটার বাংলাদেশ শাখার সেকরেটারি জেনারেল তৌফিক রহমান বলেন, গুলশান হামলার পরে বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প বিশ্বের কাছে খুবই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। প্রায় ৮২ শতাংশ টুরিস্ট আসা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। সেখান থেকে বাংলাদেশ আস্তে আস্তে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে। এমতাবস্থায় কিছু দিন আগে ইংল্যান্ড থেকে কিছু পর্যটন প্রেমি বাংলাদেশে এসে ঘুরে গেছে। যেটি আমাদের পর্যটন শিল্পের জন্য বড় ভাল কাজ হয়েছে।
তিনি বলেন, এমন পরিস্থিতিতে কক্সবাজারে যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছি সেটা আমি মনে করি যে, নতুন করে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশকে পরিচিত করার জন্যই এই মেলাটি আয়োজন করা হয়েছে এবং এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
এমতাবস্থায় বাংলাদেশ ইকোটুরিজমের কতটা সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে? জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশ আসলে ইকোটুরিজমেরই জায়গা। অতএব ইচ্ছা করলে বাংলাদেশ ইকোটুরিজমের জায়গা থেকেই দাঁড়াতে পারে। এবং এর মধ্য দিয় স্থানীয় মানুষদের সম্প্রিক্ত করা যেতে পারে। যার ফলে দেখা যায় যে, বাংলাদেশসহ স্থানীয় মানুষের অনেক লাভ হবে। অতএব আজকের সম্মেলনটির মূল লক্ষ্যই হলো স্থানীয় মানুষদের সাম্প্রিক্ত করা, তাদেরকে উপযোগী করে তোলা এবং কক্সবাজারকে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে উপস্থাপন করা।
স্থানীয় মানুষকে আপনারা কিভাবে সম্প্রিক্ত করতে চাইছেন? জবাবে তিনি বলেন, কক্সবাজারের যে সমস্থ স্থানীয় মানুষ আছে তাদেরকে যদি আমরা বোঝাতে পারি যে, এখানে যদি দেশি এবং বিদেশি পর্যটক প্রেমিরা আসেন সেক্ষেত্রে আসলে আপনারই লাভবান হবেন। সুতরাং এখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিস্থিতি উন্নয়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে উন্নতি করা হবে।
সূত্র: বিবিসি বাংলা

Top