প্রানের আনন্দে ফিরে যাব হারানো অতীতে

arfat.jpg

‌মো: আশফাক উদ্দীন আরফাত:
গত ত্রিশ বছ‌রের ঐতিহ্যে, গৌরবে, শিক্ষায় অতুলনীয় আমাদের এই ঈদগাহ আদর্শ শিক্ষা নি‌কেতন (কে‌জি স্কুল)। এই প্রতিষ্ঠানটির রয়েছে ঈর্ষনীয় সাফল্য, যা আমাদের গর্বিত করে। বুক ফুলিয়ে বলতে ইচ্ছে করে, “আমিও এই প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থী ছিলাম” সব স্মৃতি, সব মায়া আকড়ে ধরে আমরা বিচরন করছি সারা দে‌শে, সারা বিশ্বে । কখনও ইচ্ছে করে স্কুল মাঠের সবুজ ঘাসের বুকে বসে, পুরনো বন্ধুদেরকে নিয়ে কিছু সময় পার করতে ।

কিন্তু, ব্যস্ততার কারনে সময় হয়ে ওঠেনা। তাই, এবার আমরা স্কুলের কতিপয় প্রাক্তন শিক্ষার্থী উদ্যোগ নিয়েছি আবার সেই অতীতের সোনালী দিনে ফিরে যেতে, কিছুটা সময় হারিয়ে যেতে প্রিয় বন্ধুদের সঙ্গে ।

জীবনের গন্তব্য কবে, কোথায় আর কিভাবে আসবে, যাবে আর চলবে তা নিজের তো দুরের কথা সবারই অজানা। তেমনি এক পড়ন্ত বিকেলে মনের অজান্তে নিজের পরিবারের মত আরেকটি ছোট, অগোছালো পরিবারের সদস্য হয়ে রইলাম। কিন্তু সেই ছোট পরিবারটি আজ যে অনেক বড় হয়ে গেলো।

১৯৮৬ সা‌ল থে‌কে আজ ২০১৬ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ৩০ বছ‌রের পথ চলা। ছোট পরিবারের প্রতিটি সোনামুখ আজ বাংলাদেশের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। তাইতো এই শীত বেলায় গরম চায়ে চুমুক দিতে মনে পড়ে সময়ক্ষণিকের জন্য হলেও পুরণো মুখ যদি একবার দেখা যায়। জানিনা কে কোথায় আছো, কেমন আছো তারপরও মন সায় দিচ্ছে আল্লাহর রহমতে সবাই ভালো আছি। সবাই কেমনভাবে নিবে জানিনা তবে বলছি একমাত্র ভালোবাসার টানে আর পুরনো মুখ দেখার লোভে কাজটাতে হাত দিলাম ২০১৩ ব্য‌া‌চের আ‌মি আরফাত এবং মোস্তফা । স্বার্থক হব তখনি যখন পুরনো মুখগুলো হাতেহাত মিলিয়ে বলবে ” চলোনা ঘুরে আসি আমার শিকড়ে…”।

“ভালোবাসার বাধনে হোক আমা‌দের পথচলা”

Top