পেকুয়ায় শিক্ষককে পিঠিয়ে আহত: ৯ ছাত্রের নামে মামলা

followup-cbn.jpg

রিয়াজ উদ্দিন, পেকুয়া
পেকুয়া শহীদ জিয়াউর রহমান উপকুলীয় কলেজে ছাত্র কর্তৃক তিন শিক্ষককে পিঠিয়ে আহত হওয়ার ঘটনায় অবশেষে বহিষ্কৃত ৯ জন ছাত্রকে আসামী করে পেকুয়া থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। গত ৯ নভেম্বর কলেজের অধ্যক্ষ ওবাইদুর রহমান বাদী হয়ে মামলা করলে ওই মামলা রেকর্ড করা হয়। ওই দিন পেকুয়া কলেজ কার্যালয়ে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও সকল রাজনৈতিক নের্তৃবৃন্দ, সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে জরুরী বৈঠক শেষে ওই বহিষ্কৃত ছাত্রদের আসামী করে মামলা করার সিদ্দান্ত হয় এবং পুনরায় পেকুয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহাফুজুর রহমানকে আহবায়ক করে ৭ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এর প্রেক্ষিতে গতকাল ওই বহিষ্কৃত ছাত্রদের পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে দেওয়া হয় নি। অভিযুক্ত ছাত্ররা হল: কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র সালাহউদ্দিন, মিনার হোসেন, ইব্রাহীম খলিল, রেজাউল করিম, খোরশেদ আলম, আরিফুল ইসলাম, শাহাদাত হোসেন, জয়নাল আবেদীন ও আবদুর রহমান জয়। জানা যায়, গত ৬ নভেম্বর সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে নির্বাচনী পরীক্ষায় অসৎ উপায় অবলম্বনের দায়ে মিনার হোছাইন নামের এক ছাত্রকে বহিস্কারের জের ধরে ৩ জন শিক্ষককে পিটিয়ে আহত করে উচ্ছৃঙ্খল ছাত্ররা। আহতরা শিক্ষকরা হল: কলেজের ইংরেজী বিষয়ের প্রভাষক মোহাম্মদ আলম, বশির আলম ও জীববিদ্যা বিষয়ের প্রদর্শক এনামুল হক। এ দিকে কলেজ কর্তৃপক্ষ ওই ৯ জন ছাত্রকে বহিষ্কার করলেও পরের পরীক্ষায় তাদের পরীক্ষায় অংশগ্রহনের সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলনা শিক্ষকবৃন্দ। সেজন্য গত ৯ নভেম্বর কলেজ কর্তৃপক্ষের আহবানে ওই জরুরী বৈঠক অনুষ্টিত হয়। উক্ত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি লায়ন মুজিবুর রহমান। বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মারুফুর রশিদ খান, পেকুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাফায়াত আজিজ রাজু, পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ জিয়া মোহাম্মদ মুস্তাফিজ ভূইয়া, কলেজের অধ্যক্ষ ওবাইদুর রহমান, জেলা আ’লীগের সদস্য এস,এম গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেম, জেলা আ’লীগের সদস্য উম্মে কুলছুম মিনু, পেকুয়া সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বাহাদুর শাহ, জাতীয় পার্টির পেকুয়া উপজেলা সভাপতি মাহাবুব ছিদ্দিকী, উজানটিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম, শহিদুল ইসলাম চৌধুরী, কলেজের শিক্ষক আজম খান চৌধুরী, মোহাম্মদ আলী, সাংবাদিক হানিফ প্রমুখ। এ দিকে ওই ৭ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি আগামী ৭ দিনের ভিতর তাদের তদন্ত রিপোর্ট জমা দিবে। অভিযুক্ত ৯ ছাত্রদের মধ্যে নির্দোষ থাকলে তাদের বাদ দেওয়া হবে এবং এর বাইরে কোন ছাত্রের দোষ থাকলে তাদের অন্তর্ভূক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন তদন্ত কমিটি। এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ জিয়া মোহাম্মদ মুস্তাফিজ ভূইয়া জানান, মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Top