পেকুয়ায় এস.আলম গ্রুপের জমি দখলে নিতে ফের উত্তেজনা

ottejona.jpg

মোঃ ফারুক ,পেকুয়া :

পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের দক্ষিন মগনামা এলাকায় এস.আলম গ্রুপের জমি নিয়ে ফের উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। এস.আলম গ্রুপ থেকে আগামী মৌসুমের জন্য বর্গা নেয়া এসব জমিতে অবৈধভাবে দখল করাকে কেন্দ্র করে বিগত বেশকিছুদিন ধরে উত্তেজনাপূর্ণ এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। পেকুয়া থানা পুলিশ দফায় দফায় ওইসব স্থানে টহল জোরদার করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রেখেছে।

এস.আলম গ্রুপ সূত্রে জানা গেছে, কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের জন্য এস.আলম গ্রুপ মগনামা ইউনিয়নে ২০১২সালে তিনশ একর জমি ক্রয় করে। সরকারের সাথে যৌথ অংশীদারীত্বে ওই বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের প্রক্রিয়া বর্তমানে চুড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। এসব জমিতে চলতি মৌসুমে চিংড়ি উৎপাদন ও আগামী মৌসুমে লবন উৎপাদিত হচ্ছে। সম্প্রতি চলতি বছরের লবন মৌসুম শুর হতে যাচ্ছে। চাষিরা মাঠ প্রস্তুতির কাজও শুরু করেছে ইতিমধ্যে। এস.আলমু গ্রুপের এসব জমি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শরাফত উলাহ চৌধুরী ওয়াসিম ও অপর দুই ব্যক্তি চলতি সনে লবন উৎপাদনের জন্য বর্গা নিয়েছেন। একইভাবে এসব জমি তারা বর্গা চাষিদের পুণঃ লাগিয়ত করেন।

স্থানীয়রা জানান, বর্গা নেওয়া জমির মধ্যে ইউপি চেয়ারম্যান ওয়াসিমের দখলে থাকা ৩০-৪০কানি জমি দখলে নিতে তৎপর হয়েছে মগনামা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক রশিদ আহমদ ও মগনামা ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির একটি পক্ষ। তারা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে গত তিনদিন ধরে এস.আলম গ্রুপের জমিতে শক্তির বলয় তৈরি করেছে। চাষিদের ভীতি ও আতংক ছড়াতে তারা প্রতিনিয়ত স্বদলবল নিয়ে মহড়া দিচ্ছে। এনিয়ে যেকোন মুর্হুতে বড় ধরনের সংঘাত হতে পারেও বলে দাবি করেছেন স্থানীয়রা। এদিকে গত তিনদিন ধরে কালারপাড়া ও কাজিবাজার এলাকায় পুলিশের টহল দিতে দেখা গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে চাষিরা জানান, স্থানীয় এনাম, দিদার, আতিক, শফি, মামুন ও আনছারের নেতৃত্বে একটি পক্ষ মাঠ প্রস্তুতিতে তাদের বাধা প্রদান করা হচ্ছে। কিন্তু এসব জমি আমরা চেয়ারম্যান ওয়াসিমের কাছ থেকে অনেক আগে বর্গা নিয়েছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম ও জাইদুল হক জানান, তাদেরকে অহেতুক শান্তি ভঙ্গ না করতে অনুরোধ জানিয়েছি আমরা।

এবিষয়ে জানতে মগনামা ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক রশিদ আহমদের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হয়। সংযোগ না পাওয়ায় বক্তব্য নেয়া যায়নি।

মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উলাহ চৌধুরী ওয়াসিম জানায় জমির বিরোধ নিষ্পত্তি করতে এস.আলম গ্রুপ আমাদের নিয়ে বৈঠক করে। সেখানে কে কতটুকু জমি ভোগ করবে তা নির্ধারন হয়েছে। এখন যারা অনুপ্রবেশ করছে তারা চাঁদার জন্য করছে। আমরা প্রশাসনকে বলেছি। আইন শৃংখলা রক্ষায় পুলিশ নিয়মিত টহল দিচ্ছে।

Top