নারী ঘটিত কারণেই সাব্বির-আল আমিনের শাস্তি!

sabbir-alamin-.jpeg

গতকাল সন্ধ্যায় বিসিবির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, মাঠের বাইরে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে সাব্বির রহমানের বিপিএল পারিশ্রমিকের এক-তৃতীয়াংশ এবং আল-আমিনের পারিশ্রমিকের অর্ধেক কাটা যাবে।

প্রসঙ্গত এবারের এ+ ক্যাটাগরির ক্রিকেটার হিসেবে সাব্বির রহমানের পারিশ্রমিক ৪০ লাখ টাকা। তার এক-তৃতীয়াংশ অর্থ কাটার অর্থ হলো প্রায় ১৩ লাখ টাকা হাতছাড়া। অন্যদিকে আল-আমিনের পারিশ্রমিক ২৫ লাখ। ৫০ ভাগ কাটার অর্থ সাড়ে ১২ লাখ টাকা পাবেন না তিনি।

মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর বিসিবির ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তি মিডিয়ায় আসার পর একটাই প্রশ্ন, হঠাৎ এমনকি ঘটল যে এত বড় শাস্তির মুখে সাব্বির এবং আল-আমিন? এক রাতের মধ্যে আবার কী ঘটল যে সাব্বিরকে এত বড় শাস্তির মুখে পড়তে হলো?

মাঠের বাইরে এমন কি ঘটনা যে এতবড় অর্থ দণ্ড? তার পরিষ্কার ব্যাখ্যা দেননি বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল সদস্য সচিব। মঙ্গলবার রাতে সাংবাদিকদের সাথে আলাপে তিনি বলেন, বিপিএলকে স্বচ্ছ রাখতে আমরা নিজেদের অর্থায়ন ও ব্যবস্থাপনায় এক বিশেষ নজরদারি বাহিনী মোতায়েন করেছি। সেই নজরদারি ও খবরদারি বাহিনীই সাব্বির ও আল-আমিনের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ এনেছে। তাদের কাছে পরিষ্কার তথ্য-উপাত্ত ও প্রমাণও আছে।

এমন কী কর্মকাণ্ড যা বিসিবির খবর ও নজরদারির কাজে নিয়োজিত বিশেষ বাহিনীর কাছে ধরা পড়েছে? এর ব্যাখ্যা দিতে চাননি ইসমাইল হায়দার মল্লিক। তবে আকার ইঙ্গিতে যা বলেছেন, তার ভাবার্থ হলো সাব্বির ও আল-আমিন যে অন্যায় কাজ করেছেন, যে কর্মকাণ্ডের জন্য তাদের শাস্তি দেয়া হয়েছে- তা আমাদের সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে বড় ধরনের অন্যায়। অগ্রহণযোগ্য অপরাধ।

বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল সদস্য সচিব এর বাইরে আর কিছু না বললেও ক্রিকেট পাড়ায় জোর গুঞ্জন- সাব্বির ও আল -আমিনের বিরুদ্ধে অবৈধ যৌনাচারে লিপ্ত থাকার অভিযোগ আছে। একটি নির্ভরশীল সূত্র জানিয়েছে, বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্বে হোটেলে অসামাজিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন ওই দুই জাতীয় ক্রিকেটার।

সাব্বিরের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ প্রথম হলেও একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, বিপিএলের আগে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ানডের পর টেস্টের আগে ম্যানেজারের অনুমতি ছাড়া রাতে হোটেলের বাইরে গিয়ে টিম রুলস ভেঙে বেশি রাতে হোটেলে ফিরেছিলেন সাব্বির।

কিন্তু তখন তার বিরুদ্ধে কোনোরকম শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। মৌখিকভাবে সতর্ক করে দেয়া হয়েছিল শুধু। মাস খানেক পর সেই চট্টগ্রামে গিয়েই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় জড়িয়ে পড়ে মোট পারিশ্রমিকের তিন ভাগের এক ভাগ হারিয়ে বসলেন তিনি। -কালেরকন্ঠ

Top