দেশকে স্বনির্ভর করতে উন্নত বিশ্বের কর আদায় পদ্ধতির অনুসরণ করতে হবে

atik.jpg

ফরিদুল মোস্তফা খান, কক্সবাজার:
দেশের অর্থনৈতিক চিত্র পাল্টাতে প্রয়োজন উন্নত বিশ্বের কর দেয়া ও নেয়া পদ্ধতির অনুকরণ। এজন্যই সরকারের সংশিষ্ট দপ্তর একটু কৌশল পরিবর্তন করতে পারলেই পাল্টে যাবে এ খাতের চেহারা। এতে করে দরিদ্র বাংলাদেশ অন্তত কিছুটা হলেও অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা অর্জন করতে পারবে। এজন্যই অবশ্যই প্রয়োজন করদাতা দেশের সকল মানুষের আন্তরিক সহযোগীতা। কারণ সরকারকে কর দিয়ে ভিক্ষুক হয়েছেন এরকম নজির কোথাও নেই। বরং দেখা গেছে, উপযুক্ত কর পরিশোধের মাধ্যমে ব্যক্তি যেমন সম্মানিত হয়। অপরদিকে রাষ্ট্রও দিন দিন অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধি অর্জন করে।
কক্সবাজার নিউজ ডট কম (সিবিএন)কে দেয়া একান্ত সাক্ষাতকারে কথাগুলো বলেছেন, টানা সপ্তমবার কক্সবাজর জেলার সর্বোচ্চ কর দিয়ে বিগত সিআইপি পদে ভূষিত বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মেসার্স উন্নয়ন ইন্টারন্যাশনাল ও সমৃদ্ধি মাল্টিপারপাস এ্যকুয়া কালচার ফ্যাসিলিটি এন্ড রিসার্চ সেন্টারের স্বত্বাধিকারী মোঃ আতিকুল ইসলাম।
সিআইপি হিসাবে মনোনীত হওয়ার পর সরকারের পক্ষ থেকে ক্রেষ্ট গ্রহণ করে কক্সবাজারে এসে স্থানীয় সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে তাঁকে যখন অভিনন্দন আর অভিনন্দনে সিক্ত করা হচ্ছে। ঠিক তখনই তিনি এই প্রতিবেদকের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে উপরোক্ত কথাগুলো বলেছেন।
তিনি বলেন, আমি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ভ্রমণ করেছি। কিন্তু বর্হিবিশ্বের উন্নত বিভিন্ন দেশের কর আদায় পদ্ধতির সাথে আমাদের বাংলাদেশের কর দেওয়া ও নেওয়ার পার্থক্য চোখে পড়ার মত। যেমন বাংলাদেশের কক্সবাজার থেকে চট্রগ্রাম পর্যন্ত একটি প্রাইভেট কার পৌঁছাতে কর দিতে হয় ২০ টাকা। চট্রগ্রাম থেকে ঢাকা পর্যন্ত একটি প্রাইভেট কার পৌঁছলে দিতে হয় ৫০ টাকা। আর উন্নত বিশ্বের সাথে দরিদ্র বাংলাদেশের ব্যতিক্রম এখানেই, একই ভাবে ব্যাংকক সুবর্ণ ভূমি আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে শহরের দুরত্ব মাত্র ৩০ কিলোমিটার। এইমাত্র ৩০ কিলোমিটার পথ যেতেই সেই দেশের সরকার কর হিসাবে নিচ্ছে বাংলাদেশী টাকায় ১৭৬ টাকা। দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের জন্য সেখানকার জনগণও স্বতস্পুর্তভাবে সরকারের এই কর আদায় পদ্ধতিকে স্বাগত জানাচ্ছে। কোনপ্রকার উজর আপত্তি ছাড়াই পরিশোধ করছে ধার্য্যকৃত কর। ফলে দেশটি দিন দিন অর্থনৈতিক ভাবে এতবেশি সচ্ছল হয়ে উঠেছে তা রীতিমত মডেল বলা চলে। শুধু তাই নয়, কর আদায় পদ্ধতি উন্নত বলে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর সহ পৃথিবীর আরও অনেক দেশ আছে, যারা প্রতিদিন নিজেদের দেশকে উন্নতির দিকে নিয়ে যাচ্ছে। আর আমাদের দেশে কর আদায় পদ্ধতিও সঠিক নয়, তাই দেশটিও পিছনে পড়ে আছে। সম্ভবতঃ এইজন্যই বহির্বিশ্বের উন্নত দেশের তুলনায় বাংলাদেশের পিছিয়ে থাকার মন্তব্য করে সাক্ষাৎকার কালে সিআইপি আতিকুল ইসলাম আরো বলেছেন, দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন ও কল্যাণে প্রয়োজন সরকার জনগণের মাঝে বন্ধসুলভ সম্পর্কের মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রীয় কল্যাণমুলক চিন্তাভাবনা করা। অতঃপর সেগুলোকে বাস্ত বায়ন করা।
আনুমানিক ৪৫ বছর বয়স্ক সদা হাস্যজ্জ্বল কক্সবাজারবাসীর জন্য অহংকার বয়ে আনা এই আতিকুল ইসলাম সিআইপির সাথে এ প্রতিবেদকের দীর্ঘক্ষণ সাক্ষাৎকাকালে বিভিন্ন বিষয়ের উপর খোলামেলা আলোচনা হয়। এসময় তিনি রাষ্ট্রীয় উন্নয়নে কর দেওয়া ও নেওয়ার সাথে রাষ্ট্র প্রধান থেকে শুরু করে সংশিষ্ট সকলের আন্তরিক ভূমিকা প্রত্যাশা করে বলেছেন, রাষ্ট্রীয় উন্নয়নের স্বার্থে আমার দেখে আসা উলে-খিত সত্যগুলোকে অনুধাবন করে সরকার যদি সেইমতে কর আদায় করার ব্যবস্থা করে তাহলে উপকৃত হবে দেশ। আর এতে গাড়িতে চড়া কিংবা কর আরোপিত লোকজনেরও খুব বেশি বুঝা হওয়ার অবকাশ দৃশ্যমান হচ্ছেনা।

Top