দারিয়ারদিঘিতে মিনি ট্রাকের ধাক্কায় শিশু নিহত

Ramu-Pic-2.jpg

রাবেয়া আকতারের নিথর দেহ

ইমাম খাইর, সিবিএন:
রামু উপজেলার খুনিয়াপালং দারিয়ারদিঘি (থোয়াইঙ্গাকাটা) এলাকায় সুপারীবাহী মিনি ট্রাকের গাড়ীর ধাক্কায় রাবেয়া আকতার নামে নামে দশ বছর বয়সী এক কিশোরী নিহত হয়েছে। সে দারিয়ারদিঘি কালুরদোকান এলাকার ছুরত আলমের মেয়ে।

এ ঘটনায় আহত হয়েছে জোসনা আক্তার (৮) নামে আরো একজন। তাকে প্রথমে রামু সেনানিবাসের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে সেনা কর্মকর্তাদের সহায়তায় কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে সে অাশঙ্কামুক্ত বলে জানা গেছে।

শনিবার (১৯ নভেম্বর) দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘাতক চালকসহ গাড়ীটি আটক করেছে জনতা।

ঘটনাস্থল থেকে আনোয়ার হোসেন নামে এক প্রতিবেশী প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে কক্সবাজার নিউজ ডট কম (সিবিএন)কে মুঠোফোনে জানান, নিহত রাবেয়াসহ দুইজন রাস্তা পারাপারের জন্য দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিল। এ সময় ‌‌‘ছারপোকা’ নামক একটি মিনি ট্রাক তাদের ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলে রাবেয়ার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে রাবেয়ার মা’সহ স্বজনেরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ শনাক্ত করে।

এসময় ওই সড়ক হয়ে চলাচলরত সেনাবাহিনীর গাড়ীতে থাকা সেনা সদস্যরা আহত অপর মেয়েটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে।

ঘাতক গাড়ী

ঘাতক গাড়ী

রামু সেনা ক্যাম্পের মেজর মাজহার জানান, রাবেয়া আক্তার ও জোসনা আক্তার পায়ে হেঁটে বাড়ী ফেরার পথে আলহাজ্ব ফজল আম্বিয়া স্কুলের সন্নিকটে সুপারি ভর্তি নাম্বার প্লেট বিহীন একটি মিনিট্রাক মরিচ্যা হতে রামু যাওয়ার পথে তাদেরকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই রাবেয়া আক্তার নিহত হয়। জোসনা আক্তার মারাত্নকভাবে আহত হয়। পরবর্তীতে জোসনা আক্তারকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত রামু সেনানিবাসের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক কর্তৃক চিকিৎসা প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে উন্নত চিকিৎসার জন্য সেনাবাহিনীর এ্যাম্বুলেন্সযোগে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা।

Top