টেকনাফে রোহিঙ্গা বোঝাই নৌকা ডুবি, নিখোঁজ-৮

teknaf-nowka-dubi.jpg

ফরিদুল মোস্তফা খান, কক্সবাজার :

টেকনাফের নাফ নদী পারাপারের সময় রোহিঙ্গা বোঝাই নৌকা ডুবিতে শিশুসহ আটজন নিখোঁজ হয়েছে। মঙ্গলবার ভোররাতে হ্নীলা জাদিমুড়া সংলগ্ন নাফনদীতে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
জানা যায়, মিয়ানমারের রাইম্যাবিল এলাকা হতে ১৫/১৬ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু বোঝাই একটি নৌকা বাংলাদেশের জাদিমুড়া ঘাটে আসার সময় হঠাৎ করে মাঝপথে ফুটো হয়ে ডুবে যায়। এসময় নৌকা থাকা বয়স্ক নারী-পুরুষরা ডুবন্ত নৌকা ধরে প্রাণে বাঁচার চেষ্টা করে। এতে কয়েকজন রক্ষা পেলেও শিশুসহ আটজন নিখোঁজ হয়।
নিখোঁজরা হলেন- আনোয়ার ইব্রাহীম (৫), আফসানা বিবি (৩), মো. ইমরান ( ২), সাজেদ হোসাইনসহ (১) আরো দুই মেয়ে। এছাড়া অজ্ঞাত একমহিলা ও ৩০ বছরের এক যুবকও নিখোঁজ হয়।
হ্নীলা ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী জানান, নাফনদীতে রোহিঙ্গা বোঝাই নৌকা ডুবির ঘটনার খবর পাওয়া গেছে। তবে দালালরা কিছু লোককে চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার পাঠিয়েছে।
ভুক্তভোগী স্বজন হারানো রোহিঙ্গা হুমায়ুন কবির ও রোকেয়া বলেন, মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর হত্যা, নির্যাতন, নিপীড়ন সহ্য করতে না পেরে বাধ্য হয়ে প্রাণ রক্ষায় বাংলাদেশে চলে আসার সময় নদীতে নৌকাটি দুঘর্টনার কবলে পড়ে। আমাদের পরিবারের ৩ সন্তানসহ ৮ জন নিখোঁজ রয়েছে।
এদিকে টেকনাফ হ্নীলা জাদীমুরা এলাকার (ধাতু জাদি সংলগ্ন পূর্ব পাশে) চিহ্নিত আদম পাচারকারী দালাল নুরুল বশর, খাইরুল বশর, ইমাম হোসেনসহ প্রভাবশালী কয়েকটি সিন্ডিকেট মোটা অংকের বিনিময়ে আদম পাচার বাণিজ্যে মেতে উঠে। এ সিন্ডিকেট ছাড়াও জাদিমুড়া এলাকায় কয়েকটি সিন্ডিকেট নাফনদী সীমান্ত দিয়ে আদম পাচারে লিপ্ত রয়েছে।
এদিকে মিয়ানমারের সহিংস ঘটনার পর থেকে জাদিমুড়ার কয়েকটি আদম ঘাট দিয়ে মোটা অংকের বিনিময়ে রাতের আধাঁরে রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে ঢুকছে বলে স্থানীয়রা এ প্রতিবেদককে জানায়। আদম পাচারকারী সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।
এদিকে একইদিন বিকালে টেকনাফ মডেল থানার এসআই মাসুদ মুন্সী জানান, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজিরপাড়া নাফনদীর উপকূলে ভাসমান এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে লাশের পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে উদ্ধারকৃত লাশ রোহিঙ্গা বোঝাই নৌকা ডুবিতে নিখোঁজ যুবকের।

Top