টেকনাফে বিজিবি ও ভার্সিটি শিক্ষার্থীদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনায় সড়ক অবরোধ

teknaf_2.jpg

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ :

সেন্টমার্টিনদ্বীপে ভ্রমণে আসা ঢাকা জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের গাড়ি তল্লাশী নিয়ে বিজিবি সদস্যদের সাথে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার জের ধরে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা টেকনাফ-কক্সবাজার মহাসড়ক প্রায় ২ ঘন্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে। এতে টেকনাফ-কক্সবাজার মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ১০ নভেম্বর টেকনাফের দমদমিয়া বিজিবি চেকপোস্টে ঘটেছে এঘটনা। স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সমঝোতা বৈঠকের পর দীর্ঘ ২ ঘন্টা পরে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

জানা যায় ৯ নভেম্বর সেন্টমার্টিন বেড়াতে আসেন ঢাকা জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪৫ জন ছাত্র-ছাত্রী। সেন্টমাটিনে ভ্রমন শেষ করে ১০ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টায় টেকনাফ দমদমিয়া জাহাজ ঘাটে ফেরত আসেন। গাড়ী যোগে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেওয়ার সময় টেকনাফ দমদমিয়া বিজিবি চেকপোষ্টে নিয়ম অনুযায়ী গাড়ী তল্লাশী করার সময় বিজিবি সদস্য ও ছাত্রদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এরপর উভয় পক্ষের মধ্যে ভুল বুঝা-বুঝি, অসৌজন্যমূলক আচরণ ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পাশাপাশি বিজিবির কয়েকজন সদস্য ছাত্রদেরকে অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে বলে অভিযোগ উঠে। এঘটনার সাথে সাথে ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকরা গাড়ী থেকে নেমে ব্যারিকেট দিয়ে সড়ক অবরোধ করে রাখেন। এতে প্রায় ২ ঘন্টা টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। দুভোর্গে পড়েন শত শত পর্যটক।

ঘটনার খবর পেয়ে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শফিউল আলম, টেকনাফ ২ বিজিবি উপ-অধিনায়ক আবু রাসেল সিদ্দিকী, টেকনাফ মডেল থানার ওসি তদন্ত আশরাফুজ্জামান দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রতিবাদকারী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে আলোচনা করে সড়ক অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। পাশাপাশি জাহাঙ্গীর নগর বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ৫ জন বিজিবি সদস্যকেহেড কোয়ার্টারে ক্লোজ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। অভিযুক্ত ৫ বিজিবি সদস্যকে তদন্ত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দোষী প্রমানিত হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানা যায়।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) আশরাফুজ্জামান বলেন বিজিবি সদস্যদের সাথে জাহাঙ্গীর নগর বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্ররা কথা কাটা-কাটি ও ভুল বুঝাবুঝিতে সড়ক অবরোধ করে। এরপর আমরা ঘটনাস্থলে পৌছে ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হই। সড়ক অবরোধ তুলে নিয়ে তাঁদের গন্তব্যস্থলে চলে যাওয়ার জন্য সাহায্য করি। টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিউল আলম জানান বিজিবি সদস্য ও ছাত্রদের সংঘর্ষ ও সড়ক অবরোধ করার খবর শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্র ও শিক্ষকদের সাথে আলোচনার মাধ্যমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে।

Top