টেকনাফের ৩ জেলে অপহরণ

opohoron.jpg

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ:
জলসীমা অতিক্রম করে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপির) সদস্যরা টেকনাফের ৩ জন জেলে অপহরণ করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরার সময় ফিশিং ট্রলারসহ ৩ জন জেলেকে অপহরণ করা হয়।

১১ নভেম্বর দিবাগত রাত ৮টার দিকে তাদের অপহরণ করা হয়। জেলে ৩ জন জেলে হচ্ছেন উত্তর জালিয়া পাড়ার আবদুল মালেকের পুত্র আবদুর রহমান (৩২), উত্তর চৌধুরী পাড়ার ছৈয়দ হোছাইনের পুত্র মোঃ ইউনুছ (৩৫), আবদুল আজিজের পুত্র মোঃ খালেক (২৮)। অপহৃত আবদুর রহমানের পিতা আবদুল মালেক জানান টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজিরপাড়ার পশ্চিমে বঙ্গোপসাগরের মাছ ধরার সময় বিজিপির সদস্যরা জলসীমা অতিক্রম করে তাদের ধাওয়া করে। এসময় জেলেরা পালানোর চেষ্টা করলে ৩ জনকে ধরে নিয়ে যায়। ২ বর্ডার গার্ড বিজিবি অধিনায়ক জানান দোভাষীর মাধ্যমে বিজিপির সাথে কথা এবং ই-মেইলের মাধ্যমে বার্তা প্রেরন করা হয়েছে।

এদিকে সেন্টমার্টিন বঙ্গোপসাগর থেকে মিয়ানমার বিজিপি সদস্য কর্তৃক অপহৃত ৬ জেলেক ফেরত আনতে টেকনাফ বিজিবি বরাবরে লিখিত আবেদন করেছেন অপহৃতদের পরিবার। ১২ নভেম্বর দুপুরে লিখিত আবেদন করেন ফিশিং বোটের মালিক সেন্টমার্টিন কোনার পাড়া এলাকার মরহুম জাফর আহমদের পুত্র নাসির উদ্দীন। আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন গত ৯ নভেম্বর বুধবার দুপর দেড়টার সময় সেন্টমার্টিনের অদূরে বাংলাদেশের জলসীমায় মাছ শিকাররত অবস্থায় ৬ জন মাঝি-মাল্লাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অপহরণ করে মিয়ানমারে নিয়ে যায়। বর্তমানে ৬ মাঝি-মাল্লা মিয়ানমারের মংডু জেলে রয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। অপহৃত ৬ জেলেরা হলেন সেন্টমার্টিন গলাচিপা এলাকার শাইর মোহাম্মদের পুত্র আব্দুল হামিদ (৩৫), অছিউর রহমানের পুত্র মো. ফজল আহমদ (৪২), অলী চাঁনের পুত্র মো. হাশিম (৪৫), লাল মিয়ার পুত্র মো. সাদ্দাম (২৫), মোহাঃ ইসমাইলের পুত্র মো. হোসাইন (২৫) ও নুর মোহাম্মদরে পুত্র রশিদ উল্লাহ (৩০)। ফিশিং বোট মালিক মো. নাসির উদ্দিন বলেন অপহৃত ৬ মাঝি-মাল্লাকে ফেরত আনতে টেকনাফ ২ বিজিবি বরাবরে লিখিত আবেদন করেছি। টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের উপ-অধিনায়ক আবু রাসেল ছিদ্দিকী বলেন অপহৃত বাংলাদেশি ৬ মাঝি-মাল্লাকে ফেরত আনার অবেদন পেয়েছি এবং দ্রুত ফেরত আনতে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপির) সাথে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Top