চট্টগ্রামে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড

court_102422.jpg

তাজুল ইসলাম পলাশ, চট্টগ্রাম:
চট্টগ্রামে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামী সাবের আলীকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে চট্টগ্রামের একটি আদালত। একই রায়ে আদালত সাবের আলীকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদন্ড দিয়েছেন। বিচারে দোষী সাব্যস্ত না হওয়ায় সাবের আলী দ্বিতীয় স্ত্রী মনোয়ারা বেগম এবং নিকটাত্মীয় জামাল হোসেনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

প্রায় ‍দুই যুগ আগে দায়ের হওয়া হত্যা মামলাটির রায় আজ বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) রায় ঘোষনা করা হয়ে। চট্টগ্রামের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মীর রহুল আমিন এ রায় দেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামি সাবেরসহ আরো তিন জন বর্তমানে পলাতক রয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, সাবের আলী ও তার স্ত্রী আরজু বেগমকে নিয়ে নগরীর পাঁচলাইশ থানার হিলভিউ হাউজিং সোসাইটিতে জজ সাহেবের পলটের বাসায় থাকতেন। তার আরেক স্ত্রী মনোয়ারা বেগমকে বিয়ে করা নিয়ে সাবের ও আরজুর প্রায় সময় কথাকাটি হতো। পরে ১৯৯৪ সালের ১ অক্টোবর বাসা থেকে আনুমানিক ৫’শ গজ দূরে ঝুলন্ত অবস্থায় আরজু বেগমের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় পুলিশ আরজু আত্মহত্যা করেছে বলে তথ্য পায়।

কিন্তু ঘটনার নয়দিন পর ৯ অক্টোবর আরজুর বাবা নাজির হোসেন স্বামী সাবেরসহ তিনজনকে আসামি করে পাঁচলাইশ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে বলা হয়, তিনজন মিলে আরজুকে শ্বাসরোধ করে খুন করে মরদেহ ঝুলিয়ে রাখে।

ওই মামলার তদন্তের দায়িত্ব পান পাঁচলাইশ থানার তৎকালীন এস আই জয়নাল আবেদিন। তদন্ত শেষে ১৯৯৫ সালের ১২ অক্টোবর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ১৯৯৭ সালের ২২ এপ্রিল আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। মামলায় মোট ৬ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়।

বিশেষ জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আসামি সাবেরের বিরুদ্ধে দন্ডবিধির ৩০২ ধারায় অভিযোগ রাষ্ট্রপক্ষ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। এর মাধ্যমে ২২ বছর আগের মামলাটি আমরা নিষ্পত্তি করতে সক্ষম হয়েছি।

Top