কক্সবাজারে রাস মহোৎসবের শেষ দিনে ভক্তদের উপচে পড়া ভীড়

NEWS-PIC-RAS-MOHOSSOB-15-11-20161.jpg

বলরাম দাশ অনুপম, কক্সবাজার:
বুধবার সকালে শেষ হয়েছে ৫ দিনব্যাপি ঐতিহ্যবাহি রাস মহোৎসব। মহোৎসবের শেষ দিনে অর্থ্যাৎ মঙ্গলবার সারারাতব্যাপি রাসলীলা যাত্রার লীলারস আস্বাদনের জন্য কক্সবাজারের খুরুস্কুলের রাস বিহারী মন্দিরে সমাগম ঘটে হাজার হাজার ভক্ত নর-নারীর। সকাল থেকেই কক্সবাজার জেলা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভক্তরা আগমন করতে থাকে রাস বিহারী মন্দিরে। সেখানে নির্মিত বিভিন্ন প্রতিমা প্রদর্শণ করে পূজো করে অনেকে। এরপর শুনতে থাকে হরিনাম। অন্যদিকে চলে ভক্তদের মাঝে মহানন্দ বাজারে মহা প্রসাদ বিতরণ। খুরুস্কুল রাস মহোৎসব উদ্যাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক স্বপন পাল জানান-এবছর অন্যবারের চেয়ে ভক্তদের ভীড় ছিল বেশী। রাস বিহারী মন্দির পরিণত হয়েছিল উৎসবের নগরীতে। আগত ভক্তদের হরিনাম শুনান অচ্যুতানন্দ সম্প্রদায় চকরিয়া, গোপাল জিউ সম্প্রদায় সিলেট, প্রভুপাদ সম্প্রদায় ফরিদপুর, মা সারদা সম্প্রদায় গোপালগঞ্জ ও ভবতারিণী সম্প্রদায় খুলনা। গত ১২ নভেম্বর মহতি ধর্মসভার মধ্যে দিয়ে ৫ দিনব্যাপি এই রাস মহোৎসব শুরু হয়।
উল্লেখ্য-গোলক বিহারী শ্রীশ্রী রাস ঠাকুর সাধুজনের পরিত্রাণ ও দুষ্টজনের বিনাশ সাধনকল্পে মনুষ্যদেহ ধারণ করে ধরাধামে অবর্তীণ হয়েছিলেন এব বদ্ধ জীবকে তাঁর বিভূতি প্রকাশ করতে শ্রীশ্রী বৃন্দাবন ধামের রাসস্তলীতে শ্রীশ্রী রাসলীলা প্রদর্শন করেছিলেন। এরই লক্ষে প্রতিবছর খুরুস্কুল রাস বিহারী মন্দিরে রাস মহোৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।
এদিকে ৫ দিনব্যাপি রাস মহোৎসব সুষ্ঠ ও সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হওয়ায় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজসহ সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন রাস মহোৎসব উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি সুভাষ পাল ও সাধারণ সম্পাদক স্বপন পাল।

Top