ইমো, ভাইবারে বিধিনিষেধ আরোপের পরিকল্পনা নেই: তারানা

tarana-halim_1.jpg

বাসস  :

ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, ভাইবার, ইমো, হোয়াটসঅ্যাপ ইত্যাদি অ্যাপসের মাধ্যমে ভয়েস কলে সরকারের বিধিনিষেধ আরোপের কোনো পরিকল্পনা নেই।

আজ রোববার সকালে মন্ত্রণালয়ে নিজ কার্যালয়ে বাসসের সঙ্গে আলাপকালে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘অবৈধ ভিওআইপি বন্ধে আমরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তবে যোগাযোগ অ্যাপসের মাধ্যমে ফ্রি কলিংয়ে বিধিনিষেধ আরোপের কোনো পরিকল্পনা নেই।’ ভিওআইপির মাধ্যমে অবৈধ কল বন্ধে তাঁর মন্ত্রণালয়ের নিরলস প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘অবৈধ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে আমাদের “জিরো টলারেন্স” অব্যাহত থাকবে।

কিছু গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, ওটিটি অ্যাপস নিয়ন্ত্রণ করা হবে। এ ধরনের ধারণার বিষয় স্পষ্ট করতে তারানা হালিম এ কথা বলেন।

এর আগে শুক্রবার বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান বলেন, তাঁরা ওটিটি (ওভার-দ্য-টপ) অথবা আন্তর্জাতিক বৈধ কল কমাতে অবদান রাখা ফ্রি কলিং অ্যাপস হিসেবে যোগাযোগ অ্যাপস ব্যবহারের গাইডলাইন তৈরি করবে।

তবে কিছু গণমাধ্যম সুনির্দিষ্টভাবে প্রতিবেদন করেছে যে কমিউনিকেশন অ্যাপস-ভাইবার, ইমো, হোয়াটসঅ্যাপ পুনরায় বন্ধ হতে যাচ্ছে।

বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, কেবল ভিওআইপির অবৈধ কলের কারণেই নয়, ওটিটি অ্যাপসের ব্যবহারের কারণে ও বৈধ চ্যানেলে আন্তর্জাতিক কল কমছে।

বিটিআরসি জানায়, বর্তমানে দেশে দৈনিক ৭০-৮০ মিলিয়ন মিনিট আন্তর্জাতিক কল আসছে। কল সবচেয়ে বেশি বৃদ্ধি পায় ২০১৪ সালের শেষের দিকে। কল হার ৩ সেন্ট থেকে কমে দেড় সেন্ট হওয়ায় কলের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ১২৩ মিলিয়ন মিনিট। তবে কলরেট বেড়ে ২ সেন্ট হওয়ায় কলের পরিমাণ বেড়ে যায়।

Top