আরাকানের বৌদ্ধরা সন্ত্রাসী খুনি মানবতার শত্রু : আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী

HEFAJOT.jpg

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

মায়ানমারের আরকানে মুসলমান নারী ও শিশু নির্যাতন এবং নির্বিচারে গণহত্যা বন্ধের দাবিতে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ উদ্যোগে আজী ২৫নভেম্বর শুক্রবার বাদজুমা চট্টগ্রাম আন্দরকিল্লা শাহী মসজিদের উত্তর গেট চত্বরে এক সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলপূর্ব সমাবেশে প্রধান আতিথির ভাষণে হেফাজতে ইসলাম বালাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর বৌদ্ধসন্ত্রাসী ও সরকারী বাহিনী যৌথভাবে সরাসরি হত্যাকান্ড চালাচ্ছে। বর্তমান হত্যাকান্ড অতীতের যে কোন সময়ের চাইতে মর্মান্তিক। যা বিশ্ব মিডিয়া এড়িয়ে যাচ্ছে । পৈচাশিক আর নির্মমতার কোন নজীর নেই। তারা মুসলমানদের ঘর বাড়ি জ্বলিয়ে দিচ্ছে, নারীদেরকে যৌন নির্যাতন করে হত্যা করছে, মসজিদগুলি জ্বালিয়ে দিচ্ছে, শিশুসহ সব বয়সী মানুষদেরকে দা দিয়ে কুপিয়ে মারছে, এমনকি জীবন্ত মানুষগুলোকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করতেছে । এরা সন্ত্রাসী, খুনি, এরা মানবতার শত্রু। তিনি বর্ডার খুলে দিয়ে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার জন্য সরকরের প্রতি দাবী জানিয়ে বলেন, অন্যথায় মানবতার শত্রুদের কাতারে শামিল হবেন।

তিনি বলেন, জাতিসংঘ ও ওআইসি মিয়ানমার সরকারকে এই সাম্প্রদায়িক ও জাতিগত নিপীড়ন বন্ধের আহ্বান জানালেও মিয়ানমার সরকার তাতে কর্ণপাত করছে না। বৌদ্ধ ভিক্ষুরা মুসলিমবিদ্বেষী প্রচারণা চালাচ্ছে এবং তাদের নেতৃত্বেই চলছে হত্যাযজ্ঞ, অগ্নিসংযোগ। প্রাণ বাঁচাতে ক্ষুধার্ত রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ, শিশু, বৃদ্ধরা নৌকায় করে প্রতিবেশী ভাতৃপ্রতিম মুসলিম বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়ার জন্য আকুতি জানাচ্ছে। কিন্তু সরকার তাদের গ্রহণ করছে না।

তিনি বলেন, বিশ্বমোড়ল আমেরিকা, রাশিয়া, জাতিসংঘসহ গোটা দুনিয়ার কাছে বিবেকবান মানুষের প্রশ্ন, মুসলমান হওয়াটাই কি আরাকানের নির্যাতিত নাগরিকদের অপরাধ? যে নির্যাতন আজ আরাকান চলছে তার শতভাগের একভাগও যদি কোনও মুসলিম দেশে অমুসলিমদের ওপর করা হতো তাহলে বিশ্বসংস্থা ও প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের শক্তিধর দেশগুলো এভাবে নীরব ভূমিকা পালন করতো ?

আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী আগামী ১লা ডিসেম্বর হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে মায়ানমার দূতাবাস অভিমূখে গণমিলি ও স্মারকলিপী পেশ এবং ২রা ডিসেম্বর ককসবাজারে মহাসমাবেশের কর্মসূচী ঘোষণা করেন।

বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশ সংগঠনের সিনিয়র নায়েবে আমির আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমারেশে বক্তব্য কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাওলানা হাফেজ তাজুল ইসলাম, যুগ্মমহাসচিব মাওলানা জুনাইদ আলহাবিব, মাওলানা লোকমান হাকীম, মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী মাওলানা সরোয়ার কামাল আজিজী,, মাওলানা আইয়ুব বাবুনগরী, মওলানা ইসহাক মেহেরিয়া, মাওলানা নুরুল ইসলাম, মাওলানা হাবিবুল্লাহ আজাদী, মুফতি হাসান মুরাদাবাদী, মাওলানা হাজী মুজাম্মেল হক, মাওলানা জিয়াউল হোসাইন, মাওলানা আলমগীর মাসুদ, মাওলানা হাফেজ ফায়সাল, মাওলানা আনোয়ার হোসেন রব্বানী, মাওলানা জয়নাল আবেদীন, মাওলানা ইকবাল খলিল, মাওলানা আনিসুর রহমান, মওলানা ইউনুস, মাওলানা কুতুব, মাওলানা ওসমান কাসেমী প্রমূখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন, মাওলানা আনম আহমদুল্লাহ।

সভাপতির ভাষণে আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী বলেন, হাজার বছর ধরে রোহিঙ্গা মুসলমানরা বসবাস করলেও নিজ মাতৃভূমিতে তাদের নাগরিকত্ব নেই। এত অত্যাচার-নির্যাতন নিপীড়ন সহ্য করেও তারা মিয়ানমারে বসবাস করছে। সামরিক বাহিনী ও বৌদ্ধ সন্ত্রাসীদের অত্যাচার সহ্যে করতে না পেরে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করছে। এদের সাহায্য করুন। তাড়িয়ে দিয়ে আল্লাহর গজব ডেকে আনবে না।

মাওলানা জুনাইদ আলহাবিব বলেন, অসহায় রোহিঙ্গা মুসলিম ভাই বোনদের প্রতি সরকারের এই অমানবিক নিষ্ঠুর আচরণের নিন্দা জানানোরভাষা জানা নেই। কিন্তু কেন আজ রোহিঙ্গা সংখ্যালঘু মুসলিমরা তাদের অধিকারহারা? কেন ওরা নিজের আবাসভূমিতে এরকম নিষ্ঠুর বর্বরতম নির্যাতনের স্বীকার? এই প্রশ্নের উত্তর কারো অজানা নয়। কিন্তু তারপরও মানবতাবাদী কোন রাষ্ট্র সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে আসেনি। বিশ্ববিবেক আজ বড় নিষ্ঠুর। উগ্রজাতীয়তাবাদ আর ক্ষমতালিপ্সা মানুষের পাশবিকতাকে কতটা উসকে দিতে পারে, তারই বাস্তবচিত্র আরাকানের অসহায় মানুষের আর্তচিৎকার। কিভাবে উগ্রসাম্প্রদায়িকতা মানুষকে যে পশুতে পরিণত করে তার নিকৃষ্টতম উদাহরণ আজকের মিয়ানমার।

মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী বলেন, আরকানে মুসলমানের ওপর যে নির্মম নির্যাতন-নিপীড়ন চলছে তা জাহেলী যুগের বর্বরতাকেও হার মানায়। এ করুণ পরিস্থিতিতে কোন বিবেকবান ও ঈমানদার মানুষ নিরব বসে থাকতে পারে না। আরকানের অত্যাচারিত মুসলমানদের পাশে দাড়ানো সকল মুসলমানদের ঈমানী ও মানবিক দায়িত্ব।

মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেছেন, সংবিধানের ২অনুচ্ছেদের ২৫ (গ) ধারা অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া বাংলাদেশ সরকারের নৈতিক দায়িত্ব। অথচ আমাদের সীমান্তরক্ষী বাহিনী তাদেরকে পুশব্যাক করে মৃত্যুর মূখে ঠেলে দিচ্ছে। অধিকারহারা মানুষের আহাজারি, রক্তের হোলি খেলা আর লাশের গন্ধে ভারী হয়ে উঠেছে মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যের গ্রামগুলোর আকাশ বাতাস ও সাগরছোঁয়া সবুজ গহিন বন। তিনি বলেন, বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর দেশ মিয়ানমার। বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তক গৌতম বুদ্ধের মূল দর্শন হলো, ‘অহিংসা পরম ধর্ম। জীব হত্যা মহাপাপ।’ কিন্তু সে দেশের সামরিক বাহিনীর দোসর হয়ে ধর্মগুরু বৌদ্ধভিক্ষুরা এক একজন দস্যু সরদারে পরিণত হয়েছে। তাদের নেতৃত্বে চলছে নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীকে নিধন এবং নির্মূল অভিযান।

সমাবেশ শেষে এক বিরাট বিক্ষোভ মিছিল বিবিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রেসক্লাব গিয়ে মাওলানা হাফেজ তাজুল ইসলামের মুনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয়।

ছবির ক্যাপশান: সমাবেশে উপস্থিত তৌহিদী জনতার একাংশ, মিছিল ও বক্তব্য রাখছেন আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী।

Top