আব্দুল্লাহ আল মামুন-এর কন্ঠে নতুন মিউজিক এলবাম “তোমার জন্য”

abdullah-al-mamun.jpg

সংবাদদাতা:
আশির দশকের কিংবদন্তী গান “তোরে পুতুলের মতো করে সাজিয়ে” এর গীতিকার আব্দুল্লাহ আল মামুন। এরপর প্রখ্যাত ব্যান্ড সোল্সের জন্য লেখা “মুখরিত জীবন”, “ভুলে গেছো তুমি”, নকীব খানের কন্ঠে“ছোট্ট বেলার সাথী’ ইত্যাদি গানও স্রোতা নন্দিত হয়। চাঁটগা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ও তৎকালীন চট্টগ্রাম ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ থেকে প্রকৌশলী ডিগ্রী অর্জন করে পূরকৌশল বিভাগে শিক্ষকতা শুরু করেন। কিন্তু পরবর্তীতে উচ্চ শিক্ষার হাতছানি ও জীবিকার তাগিদে স্বদেশের সীমানা ছাড়িয়ে স্থায়ীভাবে তিনি পাড়ি জমান অস্ট্রেলিয়ায়।

সুদূর প্রবাসে থাকলেও তার লেখা জনপ্রিয় গানগুলোর মাধ্যমে বাংলাদেশের সঙ্গীত ভুবনের সাথে আব্দুল্লাহ আল মামুনের গড়ে উঠেছে সুরের সেতু বন্ধন। দীর্ঘ তিন যুগ পরেও সত্তুর দশকে সোলসের জন্য লেখা তার মেলাডি নির্ভর গানগুলো নতুন প্রজন্মের মুখেও এখন শোনা যাচ্ছে। একজন সার্থক গীতকার হিসাবে মূল পরিচিতি হলেও, নিজেকে একজন কন্ঠশিল্পী ভাবতেই তিনি খুব স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। তবে দীর্ঘ দিন পরেও তার লেখা গানগুলোর প্রতি স্রোতাদের অদম্য ভালোবাসা তাকে অনুপ্রানিত করেছে বারবার। আর সেই উপলব্ধি থেকেই আজকের এই এলবামের প্রয়াস, এ যেন আল মামুনের দ্বিতীয়বার ঘরে ফেরা।

সময়ের সাথে মানুষের জীবন, রুচি বদলে যাচ্ছে। যেমন পাশ্চাত্য সঙ্গীত ধারার সংমিশ্রণে এখন বাংলা গানে ফিউসন মিউজিকের জোয়ার চলছে। তবে যে ধারারই হোক না কেনো, বাংলা গানের মূলভিত্তি হল মেলোডি। সেই মেলোডির আবেদন কখনো ফুরোবার নয়। বাঙালি সংস্কৃতি যতদিন বেঁছে থাকবে, ততদিন গানের এই ধারাটি বেঁচে থাকবে। তাইতো মানুষ পঞ্চাশ, ষাট দশকের গানগুলো এখনো শুনছে। তরুণ প্রজন্মের অনেকেই সেই কালজয়ী গানগুলোকে নুতন করে এখন গলায় ধারণ করছে। তবে বাংলা গান, সে যে ধারারই হোকনা কেনো, মেলোডির আবেদন হল চিরন্তন, যা কখনো হারিয়ে যাবার নয়। বাংলা গানের সেই ক্ল্যাসিক বা মূলধারাকে ধারণ করেই “তোমার জন্য” এলবামের গানগুলো সাজানো হয়েছে। যাতে রয়েছে আধুনিক, ফোক, ও সেমি-ক্লাসিক্যাল সহ বিভিন্ন ধারার গান।

এই এলবামের জন্য কাজ করেছেন আলী হোসেন, শেখ সাদী খান, আলম খান, লাকী আখন্দ, গাজী মাজহারুল আনোয়ার, মোঃ রফিকুজ্জামান এবং অনুপ ভট্টচার্য্যের মতো কিংবদন্তিতূল্য সঙ্গীতজ্ঞ। আর কোনো এলবামে একসাথে তাঁরা কখনো কাজ করেননি। স্রোতাদের গানগুলে ভালো লাগলেই তার প্রচেষ্টা সার্র্থক হবে বলে মনে করেন শিল্পী মামুন।।

আটটি গান রয়েছে এলবামে। দেশের জনপ্রিয় মডেল, অভিনেতা/অভিনেত্রীদের অংশ গ্রহনে প্রবাসে এবং দেশের মনোরম লোকেশনে তিনটি গানের মিউজিক ভিডিওর চিত্রায়ন করা হয়েছে। প্রতিটি মিউজিক ভিডিওতে রয়েছে একটি হৃদয় ছোঁয়া গল্প, যা দর্শক-স্রোতাদের আকর্ষণ করবে। দেশের বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে মিউিজিক ভিডিওগুলো প্রদর্শিত হয়েছে। ইতিমধ্যে লাকী আখন্দের সুরে মোলাডি নির্ভর সেমি-ক্লাসিক্যাল আমেজের “মিথ্যে অভিমানে” গানটি জননন্দিত হয়েছে।

কক্সবাজারের সন্তান আব্দুল্লাহ আল মামুন, কর্মজীবনে একজন সফল প্রকৌশলী। যুক্তরাজ্য থেকে প্রকাশিত দ্বিভাষিক ম্যাগাজিন “মিলেনিয়াম”-এর চোখে নিজস্ব ক্ষেত্রে কীর্তি বিবেচনায় ২০১৩ সালের সেরা অনাবাসী বাংলাদেশী তালিকায় প্রথম দশ জনের একজন নির্বাচিত হন। মামুন হলেন একের ভিতরে অনেক। নিজের পেশোর বাইরেও অনেক ক্ষেত্রেও তিনি অবদান রেখেছেন। সিডনীর বাংলা কম্যুনিটি রেডিওর পথিকৃত আল মামুন একজন দক্ষ রেডিও সাংবাদিক ও উপস্থাপক। তাঁর উদ্যোগে ১৯৯৩ সালের প্রথম দিকে অস্ট্রেলিয়ায় তরঙ্গমালা নামে এক ঘণ্টার একটি বাংলা বেতার অনুষ্ঠান চালু হয়। এরপর অস্ট্রেলিয়ার বহুজাতিক বেতার সংস্থা এসবিএস (স্পেশাল ব্রডকাস্টিং সার্ভিস) এর বাংলা বিভাগের উপস্থাপক হিসেবে দীর্ঘদনি অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। কিছুদিন আগে প্রকাশিত হয়েছে তার একমাত্র কাব্যগ্রন্থ “খুঁজে পেয়েছি প্রিয়তমা”। অর্ন্তজালের বেশ কয়েকটি বাংলা ব্লগ ও বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লিখছেন তিনি।

Top