কক্সবাজার জেলা মাইক্রোবাস-কার মালিক সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন

Capture_1-10.jpg

মোহাম্মদ মিজানুর রহমান আজাদ, ঈদগাঁও: 

কক্সবাজার জেলা মাইক্রোবাস-কার মালিক সমিতির ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন অবশেষে সুষ্ঠু ও সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। ১০ জানুয়ারী সকাল সাড়ে ৮টা থেকে একটানা বিকাল ৪টা পর্যন্ত ১৯১ ভোটারের মধ্যে ১৮৭ জন সদস্য তাদের ভোটাাধিকার প্রয়োগ করেন। ঈদগাঁও বাসস্টেশনস্থ সমিতির প্রধান কার্যালয়ে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১১টি পদের জন্য ২৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নির্বাচন পরবর্তী দায়িত্বপ্রাপ্তরা রাত ৮টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করেন। এতে চেয়ার প্রতীক নিয়ে ১৩৬ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হন মোঃ হেলাল উদ্দীন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হোছন আলী ছাতা প্রতীক নিয়ে ৪৮ ভোট পান। হারিকেন প্রতীক নিয়ে ১০১ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন সাবেক সফল সাধারণ সম্পাদক ও পরীক্ষিত শ্রমিক নেতা কাজী জাহেদ নেওয়াজ। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জামানুল হক মামুন বাই সাইকেল প্রতীক নিয়ে ৮২ ভোট পান। মাইক্রোবাস প্রতীক নিয়ে ৯৮ ভোট পেয়ে কার্যকরী সভাপতি নির্বাচিত হন মোক্তার আহমদ। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী তাহের সিকদার পানির জাহাজ প্রতীক নিয়ে ৫৮ ভোট পান ও অপর প্রার্থী মাহবুব আনারস প্রতীক নিয়ে ১৯ ভোট। হরিণ প্রতীক নিয়ে সর্বোচ্চ ১৬৯ ভোট পেয়ে সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন রমজানুল আলম। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সাবেক সভাপতি শফিউল আলম চাকা প্রতীক নিয়ে ১৫ ভোট পান।

এছাড়া কার্যকরী পরিষদে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সিরাজ আকবর চশমা প্রতীক নিয়ে ১২৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নুরুল আজিম আম প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৯ ভোট। অর্থ সম্পাদক পদে আলী আকবর তালা প্রতীক নিয়ে ১০৮ ভোট পেয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মৌলানা নুরুল ইসলাম (দেওয়াল ঘড়ি) প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৭১ ভোট। সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে মোজাফ্ফর আহমদ মোরগ প্রতীক নিয়ে ১২০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ আয়ুব আলী রিক্সা প্রতীক নিয়ে ৫৬ ভোট পান। ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে এম কামাল উদ্দীন টেলিফোন প্রতীক নিয়ে ৮৯ ভোট, তার প্রতিদ্বন্দ্বী বেলাল উদ্দীন টেবিল প্রতীক নিয়ে ৬০ ভোট পান এবং অপর প্রার্থী লেডিস জাফর ফুটবল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৮ ভোট। প্রচার সম্পাদক পদে মোস্তফা কামাল ডাব প্রতীক নিয়ে ১৫০ ভোট, তার প্রতিদ্বন্দ্বী ইউনুছ বাবুল মাইক প্রতীক নিয়ে পান ৩২ ভোট। দপ্তর সম্পাদক পদে রুহুল আমিন পদ্মফুল প্রতীক নিয়ে ১১৩ ভোট, তার প্রতিদ্বন্দ্বী আবুল কালাম টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে পান ৬৭ ভোট। সদস্য পদে মোজাম্মেল হক মই প্রতীক নিয়ে ১০২ ভোট ও আবুতাহের কাঁঠাল প্রতীক নিয়ে ৭৮ ভোট পান।

নির্বাচনে প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্বে ছিলেন ঈদগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম ও সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্বে ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক আবদুল মজিদ খান। পুরো নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন নির্বাচন উপ-পরিষদ আমজাদ হোসেন ছোটন রাজা, মোজাম্মেল হক ও নুরুল ইসলাম পুত কোং। নির্বাচিত নেতৃবৃন্দের পক্ষে সভাপতি হেলাল উদ্দীন ও সাধারণ সম্পাদক কাজী জাহেদ নেওয়াজ নির্বাচনের পরপরই নবনির্বাচিত কেবিনেটের সকল সদস্যদের নিয়ে কার্যালয়ে উপ-পরিষদের নেতৃবৃন্দ ও মালিকদের সামনে তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, যারা অতীব কষ্ট করে সুষ্ঠু ও সফল এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিয়েছেন তাদের কাছে কৃতজ্ঞতার পাশাপাশি ভবিষ্যতে তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করার দৃঢ় সংকল্প ব্যক্ত করেন।

নির্বাচনে ঈদগাঁও পুলিশের এসআই আমজাদ আলী চৌধুরীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া স্থানীয় চেয়ারম্যান, সমাজসেবক, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের লোকজনও নির্বাচন পরিদর্শন করেন।

Top